১৮ দলের সমাবেশ: সম্মূখে জামায়াত

১৮ দলীয় সমাবেশকে ঘিরে সকাল থেকেই নেতাকর্মীরা রাজধানীর মতিঝিল শাফলা চত্ত্বরে জড়ো হতে শুরু করেছেন। জোটের নেতাকর্মীদের মধ্যে অন্যতম প্রধান শরীক জামায়াতের নেতাকর্মীই বেশি। সকাল থেকেই জামায়াত-শিবিরের কয়েকশ’ নেতাকর্মী  মঞ্চের সামনের একটি অংশের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছেন। এসময়  তারা শীর্ষ নেতাকর্মীদের  মুক্তির দাবি ও ছবি সম্বলিত ব্যানার-ফেস্টুন হাতে স্লোগান দিতে দেখা যায়।

শনিবার  শাফলা চত্ত্বর ঘুরে দেখা যায়, সকাল থেকেই বিকেলে অনুষ্ঠেয়  জনসভার প্রস্তুতি চলছে। এ উপলক্ষ্যে সকল যান চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

এসময় সমাবেশে নেতাকর্মীদের পাশাপাশি আইন-শৃংখ্লা বাহিনীকে প্রস্তুত থাকতে দেখা যায়। আইন-শৃংখ্লা বাহিনী জানিয়েছে জনসভা ঘিরে যথেষ্ট নিরাপত্তামুলক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

এদিকে জনসভার সুবিধার্থে সকাল থেকেই ইত্তেফাক মোড় থেকে মতিঝিল, দৈনিক বাংলা থেকে মতিঝিল ও আরামবাগ থেকে মতিঝিল এই তিন দিকের রাস্তা বন্ধ দিয়েছে করে দিয়েছে ট্রাফিক পুলিশ। এসময় সকাল নয়টা থেকেই দলে দলে মিছিল নিয়ে বিএনপি, ছাত্রদল, জামায়াতে ইসলামী, ছাত্র শিবিরসহ বেশ কয়েকটি দলকে নিজস্ব ব্যানারে মিছিল নিয়ে মতিঝিলে আসতে দেখা যায়।

এছাড়া শাপলা চত্বরের পশ্চিম পার্শের মঞ্চকে ঘিরে আশপাশের এলাকায় নেতাকর্মী ও সমর্থকদের অবস্থান নিতে দেখা যায়।

তবে ঢাকার আশপাশের এলাকা থেকে মিছিল এখনও এসে পৌঁছায়নি বলে জানিয়েছেন জনসভার দায়ীত্বে থাকা ভলান্টিয়াররা। তারা বলছেন গতকাল রাত থেকেই মতিঝিল এলাকায় লোকজন জড়ো হয়। অনেকে রাতে আশপাশের হোটেল ও আত্বিস্বজনদের বাড়িতে অবস্থান নিয়েছিল।

এদিকে বিকেলে অনুষ্ঠেয় বিএনপির জনসভা ও  রোববার হেফাজতে ইসলামের ঢাকা অবরোধ কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে রাজধানীতে যানবাহন তুলনামূলকভাবে কম চলছে। গণপরিবহনের সংখ্যাও কম। ব্যক্তিগত গাড়ি নেই বললেই চলে।

রাজধানী থেকে আজ সকালে দূরপাল্লার কোনো বাস ছেড়ে যায়নি। অন্যান্য জেলা থেকে রাজধানীর গাবতলী, সায়েদাবাদ, মহাখালী বাস টার্মিনালে বাস কম আসছে।
এ ছাড়া সকাল থেকে শহরের ভেতরে চলাচলকারী বাসের সংখ্যাও কম লক্ষ্য করা গেছে। বিভিন্ন বাস স্টপেজের মালিক-সমিতির লোকজন নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, বিকেলের দিকে শহরে বাস চলাচল আরও কমে যাবে।

রাজধানীর এই অবস্থায় দুর্ভোগে পড়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন অনেকে। গাড়ি না পেয়ে লোজনকে পায়ে হেটে অনেক দুরের পথ চলাচাল করতে দেখা গেছে। তবে সামাবেশকে কেন্দ্র করে প্রথমবার ঢাকায় আসেতে পেরে খুশি অনেকে।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।