রবি-সোমবার দুদিনের সহিংসতায় একটি হত্যা মামলাসহ অন্তত ৯টি মামলা

রবি-সোমবার দুদিনে ঢাকা ও চট্টগ্রামে হেফাজতে ইসলামের কর্মীদের সাথে নিরাপত্তা বাহিনীর সংঘর্ষে ঘটনায় একটি হত্যা মামলাসহ অন্তত নয়টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। পল্টন থানা থেকে জানানো হয়েছে হেফাজতের আটককৃত মহাসচিব সহ ৩৪জনকে আসামি করা হয়েছে এই মামলায়। এর আগে সোমবার রাতে হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব জুনায়েদ বাবুনগরীকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে।

রোববার – হেফাজতে ইসলামের অবরোধ ও সমাবেশ কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে চলা সহিংসতায়। এরপর রোববার কাঁচপুর থেকে নারায়ণগঞ্জ পর্যন্ত এলাকায় সকাল থেকে চলা ব্যাপক সহিংসতায় আরো ২১ জন নিহত হয়। দিনের আরো পরের দিকে চট্টগ্রামের হাটহাজারিতে হেফাজতে ইসলামের কর্মী ও পুলিশের সংঘর্ষে আরো আট জনের মৃত্যু হয়। পুলিশ ও স্থানীয় প্রশাসন এ সংখ্যা নিশ্চিত করেছে।

রাতে ঢাকার লালবাগ এলাকা থেকে হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব জুনায়েদ বাবুনগরীকে গ্রেফতার করা হয়। তিনি এখন গোয়েন্দা পুলিশের হেফাজতে রয়েছেন বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

এর আগে ঢাকার কাছে নারায়ণগঞ্জের সাইনবোর্ড , সিদ্ধিরগঞ্জ এবং কাঁচপুরে সহিংসতায় নিহতদের মধ্যে পুলিশের দুইজন এবং বিজিবির একজন সদস্য, এবং বাকীরা সাধারণ লোক বলে নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসন জানিয়েছে।

পুলিশ জানায়, সংঘর্ষে আরো অন্তত ১০ জন পুলিশ এবং ছয়জন বিজিবি সদস্য গুরুতর আহত হয়েছে।  তবে হেফাজতে ইসলামের নেতারা দাবি করছেন, নিহতের সংখ্যা অনেক বেশি, এবং মৃতদেহ গুম করা হয়েছে।

সোমবার ভোর থেকে নারায়ণগঞ্জে শুরু হওয়া সংঘর্ষে ব্যাপক অগ্নিসংযোগ এবং ভাঙচুর চালানো হয় বলে পুলিশ জানিয়েছে। এ সময় পুলিশ বক্স এবং বিজিবির গাড়িতেও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে। পুলিশকে সে সময় দফায় দফায় গুলি চালাতে দেখা যায়।
অন্যদিকে সোমবার দুপুরে হেফাজতে ইসলামের আমীর আহমেদ শফিসহ কয়েকজন নেতাকে পুলিশের ব্যবস্থাপনায় বিমানযোগে চট্টগ্রামে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে বলে পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়।

এর আগে রোববার মধ্যরাতে রাজধানী ঢাকার বাণিজ্যকেন্দ্র মতিঝিলে অভিযান চালিয়ে সেখানে অবস্থান নেয়া হেফাজতে ইসলামের কর্মীদের সরিয়ে দেয় দেশটির আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

অভিযান শুরুর ঘন্টা খানেকের মধ্যেই যৌথ বাহিনী হেফাজতে ইসলামের কর্মীদের হটিয়ে দিয়ে শাপলা চত্বরের দখল নেয়। সূত্র: বিবিসি।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।