রাজধানীসহ সারা দেশে বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষ-ভাঙচুর চলছে

১৮ দলের হরতাল চলছে রাজধানীসহ সারা দেশে হরতাল চলছে।  বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষ, ভাঙচুর ও ককটেল বিস্ফোরণের মধ্য দিয়ে এই হরতাল পালিত হচ্ছে। বুধবার ভোর ৬টা থেকে হরতাল শুরু হয়েছে। সকাল ৯টা পর্যন্ত কোথাও বড় ধরনের কোনো অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। তবে রাজধানীর আজিমপুর, মিরপুর, মীর হাজিরবাগ ও সেগুনবাগিচাসহ কয়েকটি স্থানে পুলিশের সঙ্গে হরতালকারীদের ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। পুলিশ ছাত্রদলের কয়েকজনকে আটক করেছে।

বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহার, আটক নেতাকর্মীদের মুক্তি এবং নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে এ হরতালের ডাক দেয় বিএনপির নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোট। অন্যান্য হরতালের তুলনা আজকের হরতালে ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের মাঠে সক্রিয় থাকতে দেখা গেছে। এছাড়া ১৮ দলের অন্যতম শরিক জামায়াতও হরতালে সক্রিয় রয়েছে।

বুধবার সকাল থেকেই রাজধানীর সড়কগুলোতে সীমিত আকারে  যান চলাচল করতে দেখা গেছে। রাজধানী থেকে দূরপাল্লার সড়ক যোগাযোগ বন্ধ থাকলেও ট্রেন ও লঞ্চ চলাচল স্বভাবিক রয়েছে। যেকোনো ধরনের অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে নেয়া হয়েছে বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা। গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনাসহ বিশেষ বিশেষ স্থানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

ঢাকার বাইরে সিলেটের সোবহানীঘাট এলাকা থেকে হরতালের সমর্থনে ঝটিকা মিছিল বের করে শিবিরকর্মীরা। সেখানে টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে সড়ক অবরোধ করে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে তারা। নাশকতা এড়াতে নগরীতে পুলিশের পাশাপাশি রয়েছে বিজিবি ও র্যা বের টহল। চট্টগ্রামে ঢিলেঢালা ভাবে চলছে হরতাল। নগরীর ব্যস্ততম এলাকাগুলোতে মানুষের ভিড় বাড়লেও যানবাহনের চলাচল কিছুটা কম। হরতালের সমর্থনে নগরীর কাজীরদেউড়ী এলাকায় মিছিল করেছে বিএনপির নেতা কর্মীরা। বগুড়ায় কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটলেও যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবেলায় শহরের গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে নেয়া হয়েছে কড়া নিরাপত্তার ব্যবস্থা ।

এছাড়া আশুলিয়া এবং ধামরাইতে যানবাহনে পিকেটাররা আগুন দিয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।