রায়পুরে ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা, ২ যুবলীগ নেতা জখম

লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে রোববার ( ১৫ ডিসেম্বর)  বিকেলে পৃথক ঘটনায় এক ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা ও ২ যুবলীগ নেতাকে মারাত্বক জখম করেছে সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা। এসময় অপর দুই যুবলীগ নেতাকেও কুপিয়ে মারাত্বক জখম করা হয়। আহত দুইজনকে আশংকাজনক অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য-কমপ্লেক্্ের চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। এঘটনায় শহরে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।

নিহত মিরাজুল ইসলাম মিরাজ (৩০) লক্ষ্মীপুর জেলা ছাত্রলীগের সহ সম্পাদক ও রায়পুর শহরের বয়াতি বাড়ির আবুল কালামের ছেলে এবং আহত যুবলীগ নেতা মোঃ মাসুদ পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ডের যুবলীগ কর্মী ও শ্রমিক নেতা মোঃ ইউছুফের ছেলে ও মোঃ বাহার পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ড যুবলীগ সভাপতি, ও হেদায়েত উল্লাহ মালের ছেলে। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এ ঘটনায় থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

এলাকাবাসি জানান,  বিকেল ৪টায় কেরোয়া ইউনিয়নের লুধুয়া গ্রামের ভাটের মসজিদ নামক স্থানের একটি ধান ক্ষেতে ছাত্রলীগ নেতা মিরাজ ও তার সহযোগী যুবলীগ নেতা মাসুদ অজ্ঞাত তিন-চারজন ছেলের সাথে কথাকাটাকাটি চলছিল। কিছুক্ষন পর মিরাজ ও মাসুদ রক্তাক্ত জখম অবস্থায় চিৎকার দিয়ে মাটিতে লুটে পড়ে। এসময় স্থানীয় লোকজন তাদেরকে উদ্ধার করে রায়পুর সরকারি হাসপাতালে নিয়ে যায়। আরেক যুবলীগনেতা মোঃ বাহার দুপুর ১২টার দিকে রায়পুর-চাঁদপুর সড়কের আ’লীগ নেতা বাকী বিল্লার মালিকানাধিন জাকের বস্ত্র বিতানের পাশের চায়ের দোকানে বসে নাস্তা করছিলেন। এ সময় ৫-৬ জনের সশস্ত্র সন্ত্রাসী এলোপাথারি কুপিয়ে জখম করে।

রায়পুর উপজেলা স্বাস্থ্য-কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ও জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত ডাক্তার বাহারুল আলম ছাত্রলীগ নেতা  মিরাজের মৃত্যু নিশ্চিত করে বলেন, আহত দুই যুবলীগ নেতাকে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। তাদের অবস্থা আশংকামুক্ত। তাদের মাথা, বুক ও উরুসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে মারাত্বক আঘাত রয়েছে।

রায়পুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রুপক কুমার সাহা বলেন, খবর পেয়েই পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে এবং কয়েকটি দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। বিষয়টি তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে বলে জানান।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।