দেশে এক ভয়াবহ অবস্থা বিরাজ করছে, অনিশ্চিত যাত্রায় রক্তপাত অনিবার্য: কাজী জাফর

দেশে এক ভয়াবহ অবস্থা বিরাজ করছে। এই অনিশ্চিত যাত্রায় রক্তপাত অনিবার্য  বলে মন্তব্য করেন, জাতীয় পার্টির একাংশের চেয়ারম্যান কাজী জাফর আহমদ।

বৃহস্পতিবার দুপুরে গুলশানে একটি রেস্তোরাঁয় সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি। শুক্রবার তার দলের কাউন্সিল সামনে রেখে এই সংবাদ সম্মেলন করা হয়।

রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবে তার দলের বিশেষ কাউন্সিল হবে শুক্রবার। সেখানে সার্বিক বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানান কাজী জাফর।

কাজী জাফর বলেন, “১৫৪ জন সংসদ সদস্য বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। এর চেয়ে বড় তামাশা আর নেই। এ এক অদ্ভুত নির্বাচন।” দেশ গৃহযুদ্ধের প্রান্তসীমায় পৌঁছতে পারে মন্তব্য করে কাজী জাফর বলেন, “এটি এমন এক জায়গা, যা আমাদের কাম্য নয়।”

সব দল অংশ না নিলে তারা নির্বাচনে যাবেন না জানিয়ে এরশাদ সরকারের এই সাবেক প্রধানমন্ত্রী বলেন, “এরশাদ যখন ইউটার্ন নিলেন, জাতির কাছে দেয়া তার প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করেছেন। তথাকথিত সর্বদলীয় সরকারে যোগ দিয়েছিলেন। তিনি প্রেসিডিয়ামের কোনো সভা ডাকেননি। আমাদের কিছু জানাননি। তাই দলের গঠনতন্ত্রের ৩৭ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী আমরা তাকে অপসারণ করেছি।

জাফর বলেন, “এ নির্বাচন গণতান্ত্রিক ঐতিহ্যকে নষ্ট করেছে। শুধু একটি দেশ ছাড়া সারা বিশ্ব একদিকে। ইউরোপীয় ইউনিয়ন প্রতিবাদ করছে। গণচীনও বসে নেই। তারা বাংলাদেশকে স্বাধীন দেশ হিসেবে দেখতে চায় বলে বিবৃতিও দিয়েছে।”

গত সপ্তাহে গণচীনের রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে সাক্ষাৎ হয়েছে দাবি করে জাফর বলেন, “আমি তার সঙ্গে সাক্ষাতে উপলব্দি করলাম- গণচীন আমাদের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব নিয়ে উদ্বিগ্ন। যে গণচীন বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে কিছু বলত না, তারা এখন ইতিবাচক ভূমিকা রাখছে। এটি অত্যন্ত মর্যাদাপূর্ণ।”

কাজী জাফর বলেন, “আমাদের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে পাকিস্তানের হস্তক্ষেপ সমর্থন করি না। পাকিস্তান তাদের সীমারেখা লঙ্ঘন করেছে। এটি উচিত হয়নি।”

শুক্রবার দলের বিশেষ কাউন্সিলে চলমান সরকারবিরোধী আন্দোলনে তার দলের যুক্ত হওয়ার ইঙ্গিত দিয়ে বলেন, “চলমান আন্দোলনে আমরা সর্বাত্মক সহযোগিতা করছি। কালকের কাউন্সিলের মাধ্যমে চলমান সরকারবিরোধী আন্দোলনে জাতীয় পার্টির সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হবে।”

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন দলের মহাসচিব গোলাম মসিহ, প্রেসিডিয়াম সদস্য টি আই এম ফজলে রাব্বি এমপি, এইচ এম রেজা এমপি, এস এম এম আলম, ভাইস প্রেসিডেন্ট সেলিম মাস্টার, মহিলা নেত্রী মুনিরা বেগম প্রমুখ।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।