আ’লীগের ঘনিষ্ঠ দেশ রাশিয়ার পর্যবেক্ষক না পাঠানোর ঘোষণা

৫ জানুয়ারির নির্বাচেন পর্যবেক্ষক না পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে আওয়ামী লীগের ঘনিষ্ঠ  দেশ বলে পরিচিত রাশিয়াও । নির্বাচন কমিশন কার্যালয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিবউদ্দীনের সঙ্গে সাক্ষাৎকালে রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত আলেকজান্ডার নিকোলাইভ এ কথা জানিয়েছেন।

রাশিয়ান রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে সিইসি কাজী রকিবউদ্দীন গণমাধ্যমে নির্বাচন সম্পর্কে রাশিয়ার অবস্থানের কথা বলেছেন।

রাশিয়া পর্যবেক্ষক না পাঠানোর কারণ হিসেবে বলেছে, “জানুয়ারির ১১ তারিখ পর্যন্ত বড়দিনের ছুটি থাকায় নির্বাচনে পর্যবেক্ষক পাঠানো সম্ভব হবে না।”

এর আগে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র জেন সাকি এক বিবৃতিতে পর্যবেক্ষক না পাঠানোর ঘোষণা দেন।

জেন সাকি বিবৃতিতে বলেন, “দেশের মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্য হবে- এমন একটি অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন আয়োজনের মাধ্যমে বাংলাদেশ গণতন্ত্রের প্রতি নিজেদের প্রতিশ্রুতি তুলে ধরার সুযোগ নেবে বলেই যুক্তরাষ্ট্র বিশ্বাস করে।”

“কিন্তু যুক্তরাষ্ট্র হাতাশার সঙ্গে দেখল, তেমন একটি নির্বাচন আয়োজনে প্রধান রাজনৈতিক দলগুলো এখনো কোনো সমঝোতায় পৌঁছাতে পারেনি, বরং ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে অর্ধেকেরও বেশি আসন থেকে গেছে প্রতিদ্বন্দ্বীহীন।

“এই প্রেক্ষাপটে যুক্তরাষ্ট্র এই নির্বাচনে কোনো পর্যবেক্ষক পাঠাবে না। তবে পরে নির্বাচনের জন্য আরো অনুকূল পরিবেশ তৈরি হলে পর্যবেক্ষক পাঠাতে যুক্তরাষ্ট্র তৈরি।”

ইউরোপীয় ইউনিয়নও (ইইউ) জানিয়ে দেয়, তারা এবার বাংলাদেশে পর্যবেক্ষক পাঠাচ্ছে না।

ইইউর পররাষ্ট্রনীতি ও নিরাপত্তা বিষয়ক হাই রিপ্রেজেনটেটিভ ক্যাথেরিন অ্যাশটন এক বিবৃতিতে বলেন, “জাতিসংঘসহ বিভিন্ন পক্ষের নানামুখী চেষ্টার পরও বাংলাদেশের রাজনৈতিক শক্তিগুলো অংশগ্রহণমূলক একটি নির্বাচনের শর্ত পূরণে ব্যর্থ হয়েছে।”

তার পর কমনওয়েলথ  জানায়, বাংলাদেশের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে পর্যবেক্ষক পাঠানো হবে না ।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।