”গোলাপি রে গোলাপি, ট্রেন তো মিস করলি”

বিএনপি জামায়াতকে সঙ্গে নিয়ে দেশের মানুষের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে- এমন অভিযোগ এনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ”কোনো ধরনের নৈরাজ্য, সন্ত্রাস সহ্য করা হবে না। এর জন্য সরকার যত কঠোর হওয়া দরকার, তত কঠোর হবে।” এই দেশে জঙ্গীবাদীদের কোনো স্থান হবে না বলেও প্রধানমন্ত্রী হুঁশিয়ার করেন।

বৃহস্পতিবার বিকেলে যশোরের অভয়নগর উপজেলার নওয়াপাড়ায় শংকরপাশা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে স্থানীয় আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় বলেন, ”ইসলামের নামে রাজনীতি করলেও জামায়াত ইসলাম ধর্মে বিশ্বাস করে না। জামায়াত মানবাধিকারেও বিশ্বাস করে না। এদের প্রভূ যে কোথায় সেটাই এখন প্রশ্ন।”

খালেদা জিয়াকে জামায়াতের আমির উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ”জামায়াতকে নিয়েই ওনার ওঠাবসা।”

বিএনপির নির্বাচনে না যাওয়ার সমালোচনা করে খালেদা জিয়ার উদ্দেশে তিনি বলেন, ”গোলাপি রে গোলাপি, ট্রেন তো মিস করলি।”

খালেদা জিয়া এখনও তার পেয়ারে পাকিস্তানকে লালন করে চলেছেন বলে মন্তব্য করেন শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ”যুদ্ধাপরাধীদের বিচার চলতে থাকবে। বিচারের রায় চলতে থাকবে। কেউ এই বিচার বন্ধ করতে পারবে না। অনেকেই এই বিচার বন্ধ করতে চেয়েছেন। কিন্তু পারেননি।”

শেখ হাসিনা বলেন, ”খালেদা জিয়ার যত রাগ গোপালগঞ্জের  উপর। উনি গোপালী বলে গালি দেন। গোপালগঞ্জের উপর তার এত রাগ কেন? বঙ্গবন্ধু সেখানে জন্মেছেন বলে?”

আওয়ামী লীগ সরকার উন্নয়নের সঙ্গে জড়িত দাবি করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ”উন্নয়নের ধারাবাহিকতা আগামীতেও বজায় থাকবে।”

বিএনপি-জামায়াত একের পর এক হত্যাযজ্ঞ চালিয়ে যাচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ”শত বাধা উপেক্ষা করেও মানুষ ৫ জানুয়ারি ভোট দিয়েছে। বিএনপি নেত্রী নির্বাচন ঠেকাতে ভোট কেন্দ্রে আক্রমণ চালিয়েছেন। কিন্তু তিনি নির্বাচন ঠেকাতে পারেননি।”

শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপি গাড়ি থেকে মানুষ নামিয়ে পেট্রোল ঢেলে পুড়িয়েছে। তাদের অত্যাচার নির্যাতন ভাষায় প্রকাশ করা যায় না।

এর আগে নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতার শিকার অভয়নগর উপজেলার মালোপাড়া পরির্দশন করেন। সেখানে ক্ষতিগ্রস্ত ৫১টি পরিবারের প্রত্যেককে ২০ হাজার থেকে এক লাখ টাকার চেক প্রদান করেন তিনি। এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের মানুষের শান্তি ও নিরাপত্তা রক্ষার জন্য যত কঠোর হওয়া দরকার সরকার হবে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।