র‌্যাব-পুলিশের সহায়তায় কেন্দ্র দখল করছে সরকারদলীয়রা

দলটির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী দাবি করেছেন তৃতীয় দফা উপজেলা নির্বাচন নিয়ে বিএনপির আশঙ্কার প্রতিফলন ঘটেছে  । তিনি অভিযোগ করেন, র‌্যাব-পুলিশের সহায়তায় সরকার দলীয় সন্ত্রাসীর ভোটকেন্দ্র দখল করে নিচ্ছে।

শনিবার  বেলা  ১১টার দিকে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে রিজভী এ দাবি করেন।

সংবাদ সম্মেলনে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান নির্বাচনে সেনা মোতায়েনকে লোক দেখানো বলে মন্তব্য করেন।

রিজভী বলেন, “উপজেলা নির্বাচনের ফলাফল সরকারি দলীয় সমর্থিত প্রার্থী ছিনিয়ে নেয়া ষড়যন্ত্র করছে বলে আমরা বারবার গণমাধ্যমের সামনে অভিযোগ করে আসছি। কিন্তু নির্বাচন কমিশন (ইসি) আমাদের কথার কর্ণপাত করেননি বলেই আজ নির্বাচন শুরু হওয়ার পর থেকে র‌্যাব-পুলিশের সহায়তায় কেন্দ্রগুলো দখলের মধ্য দিয়ে সরকারি দলীয় সমর্থিত প্রার্থীরা অবাধে জালভোটের মহাউৎসব মেতে উঠেছে।”

৮১ টি উপজেলায় পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও নির্বাচন কমিশন সরকারি দলীয় সমর্থিত প্রার্থীদের পক্ষে কাজ বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

রিজভী বলেন, “উপজেলা নির্বাচনের মধ্য দিয়ে প্রমাণ হয়েছে এই নির্বাচন কমিশনের অধীনে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হতে পারে না।”

এক প্রশ্নে জবাবে তিনি বলেন, “৮১ উপজেলায় মধ্য কিছুসংখ্যক এলাকায় জামায়াত সমর্থিত প্রার্থীরা নির্বাচন করলেও এতে বিএনপি ও জামায়াতের মধ্য কোনো টানাপোড়েনের সম্ভাবনা নেই। কারণ তাদেরকে স্থানীয়ভাবেই মনোনয়ন দেয়া হয়েছে।”

অপর এক প্রশ্নে জবাবে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন,  “লোক দেখানোর জন্য নির্বাচন কমিশন উপজেলা নির্বাচনে সেনাবাহিনী মোতায়েন করেছে। মূলত তাদের কোনো ক্ষমতা দেয়া হয়নি। তবে আমরা মনে করি নির্বাচনকে অবাধ ও সুষ্ঠু করা লক্ষ্যে সেনাবাহিনীকে ক্ষমতা দেয়া উচিত।”

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির সহ-দফতর সম্পাদক আব্দুল লতিফ জনি, শামীমুর রহমান শামীম, যুব দলের সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুস সালাম আজাদ প্রমুখ।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।