ব্যাপক অনিয়ম ও সহিংসতার মধ্য দিয়ে ৮১ উপজেলায় ভোটগ্রহণ শেষ: গণনা চলছে

ব্যাপক অনিয়ম, ব্যালট ছিনতাই, কেন্দ্র দখল, কারচুপি, জালভোট এবং সহিংসতার মধ্য দিয়ে তৃতীয় ধাপে ৮১ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে। শনিবার সকাল আটটা থেকে শুরু হয়ে কোনো বিরতি ছাড়াই বিকেল চারটা পর্যন্ত চলে ভোটগ্রহণ। এখন চলছে ভোট গণনার কাজ।

এদিকে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বাগেরহাটে শিবিরের এক কর্মীকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এছাড়া কেন্দ্র দখল এবং জালভোট দেয়ার অভিযোগে ফেনীর দাগনভুইঁয়া, বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জ ও শরণখোলা, শরিয়তপুর সদর, কুমিল্লার নাঙ্গলকোট এবং বরিশালের মুলাদিতে ভোট বর্জন করেছে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীরা। অনিয়মের কারণে ৯টি কেন্দ্রে ভোট স্থগিত করেছে নির্বাচন কমিশন। তবে নতুন বার্তা ডটকমের স্থানীয় প্রতিনিধিদের মাধ্যমে জানা গেছে এ সংখ্যা আরো অনেক বেশি।

অন্যদিকে কারচুপি ও জালভোটের ছবি তুলতে গিয়ে ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা এবং কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে আওয়ামী লীগ সমর্থকদের হাতে কয়েকজন সাংবাদিক লাঞ্ছিত হয়েছেন। এছাড়াও নোয়াখালীর সেনবাগে কেন্দ্র দখলের চেষ্টা, জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, সিলেটে পিজিইডিং অফিসারকে লাঞ্ছিত, চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদার পোলিং এজেন্টদের মারধরের ঘটনা ঘটেছে।
 
বাগেরহাটে শিবির কর্মী নিহত
বাগেরহাটের শহরতলীর মেঘনিতলা কাড়াপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ ভোটকেন্দ্রের বাইরে সকাল সাড়ে ৯টার দিকে সরকারি পিসি কলেজের ছাত্রশিবির নেতা মানজারুল ইসলামকে (২৪) পিটিয়ে হত্যা করেছে স্থানীয় আওয়ামী লীগের ক্যাডাররা। ভোট কেন্দ্র থেকে তাকে ধরে নিয়ে মেঘনিতলা এলাকায় রাস্তার ওপর প্রকাশ্যে ইট দিয়ে আঘাত করে শিবির নেতার মাথা থেঁতলে ও কুপিয়ে হত্যা করে। পরে মৃতদেহটি রাস্তায় ফেলে রেখে যায় সন্ত্রাসীরা।

মুলাদীতে দুই প্রার্থীর ভোট বর্জন
বরিশালের মুলাদী উপজেলা নির্বাচনে শনিবার বিএনপি-সমর্থিত ও বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থী ভোট বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন। আওয়ামী লীগ-সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থীর বিরুদ্ধে কেন্দ্র দখল ও কেন্দ্র থেকে এজেন্টদের বের করে দেয়ার অভিযোগ এনেছেন তারা।

বেলা পৌনে ১১টার দিকে উপজেলার দলীয় কার্যালয়ে বিএনপি-সমর্থিত প্রার্থী মো. আবদুস সত্তার ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন। প্রায় একই সময় বিএনপির বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থী বেলাল হোসেনও পৃথকভাবে ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন।

ভোট বর্জনকারী উভয় প্রার্থী আওয়ামী লীগ-সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. তারিকুল হাসান খানের বিরুদ্ধে কেন্দ্র দখল ও কেন্দ্র থেকে এজেন্টদের বের করে দেয়ার অভিযোগ এনেছেন।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. দুলাল তালুকদার বলেন, “দুই প্রার্থী ভোট বর্জন করেছেন বলে আমরা সংবাদ পেয়েছি। এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে আমরা অবগত নই।”

বাগেরহাটের দুই উপজেলায় বিএনপির ভোট বর্জন
বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জ ও শরনখোলা উপজেলায় বিএনপি প্রার্থীরা ভোট বর্জন করেছেন। নির্বাচনী ভোট কেন্দ্রে ভোটার ও এজেন্টদের মারপিট, কেন্দ্র থেকে বের করে দেয়া ও সহিংসতার অভিযোগে মোড়েলগঞ্জে বিএনপি প্রার্থী আব্দুল মজিদ জব্বার ও শরনখোলায় বিএনপি প্রার্থী খাঁন মতিয়ার রহমান ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন।  শনিবার সকাল ১০টার দিকে তারা ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন তারা।

শরীয়তপুর সদরে ভোট বর্জন বিএনপি প্রার্থীর
ভোট কেন্দ্র থেকে এজেন্ডদের বের করে দেয়াসহ জাল ভোট দেয়ার অভিযোগে শরীয়তপুরর সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিএনপির সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী মাহবুব মোরশেদ টিপু মাদবর নির্বাচন বর্জন করেছেন। এ বিষয়ে বিএনপির প্রার্থী মৌখিক ভাবে নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিলেও রিটার্নিং কর্মকর্র্তার কাছে কোনো লিখিত আবেদন করেননি।

নাঙ্গলকোটে বিএনপি প্রার্থীর নির্বাচন বর্জন
কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলায় নির্বাচন বর্জন করেছেন বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী নজির আহমেদ ভ্ইূয়া। দুপুরে তিনি নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেন। উপজেলার ৮০টি কেন্দ্রের মধ্যে ৭০টি কেন্দ্রই আওয়ামী লীগের প্রার্থীর লোকজন দখল করে নিয়েছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

এদিকে জোদ্দা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র দখল করাকে ঘিরে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীর লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন।

দাগনভূঁইয়ায় নির্বাচন বর্জন, ভোটগ্রহণ স্থগিত
ফেনী জেলার দাগনভূঁইয়ার চার কেন্দ্রে সরকার দলীয় প্রার্থীরা জোর করে কেন্দ্র দখল করায় ভোটগ্রহণ স্থগিত করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। সকাল ৯টার দিকে ফেনী সদরের নির্বাহী কর্মকর্তা ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট জি কে এম এনামুল করিম চার কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত করেন।

মুক্তাগাছায় সাংবাদিকদের ওপর হামলা
ময়মনসিংহের মুক্তাগাছায় হাজী কিতাব আলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আওয়ামী লীগ সর্মথিত চেয়ারম্যান প্রার্থী বিল্লাল সরকারের (ঘোড়া প্রতীক) সমর্থকরা দৈনিক যুগান্তরের ফটো সাংবাদিক আদিলুজ্জামান আদিলসহ তিন সাংবাদিকের ওপর হামলা করেছেন। ভোটগ্রহণ চলাকালীন সময়ে সকাল ১০টা ৫০ মিনিটে এ ঘটনা ঘটে।

কারচুপির দৃশ্য ধারণ করায় কুমিল্লায় সাংবাদিককে মারধর
কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলা নির্বাচনে পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট কারচুপির দৃশ্য ধারণের সময় চ্যানেল টোয়েন্টফোরের জেলা প্রতিনিধি আশিকুর রহমান সোহেলকে মারধর করেছে স্থানীয় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। এসময় তার ক্যামেরা ছিনিয়ে নেয়া হয়। সকাল ১১টার দিকে ওই কেন্দ্র ভেতরে এ ঘটনা ঘটে। অন্যদিকে কাশিনগর ইউনিয়নের অশ্বদিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় মানবজমিনের রিপোর্টার নিয়াজকে মারধর করেছে স্থানীয় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা।

সেনবাগে কেন্দ্র দখলের চেষ্টা, ভোটগ্রহণ বন্ধ
নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলায় একটি ভোটকেন্দ্র দখলের চেষ্টা করেছে এক দল দুর্বৃত্ত। এর পর থেকে ওই কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ বন্ধ রয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শী ও এলাকাবাসী জানান, দুপুর পৌনে ১২টার দিকে পশ্চিম ছাতারফাইয়া দারুল উলুম কওমি মাদ্রাসা কেন্দ্রে ২৫-৩০ জনের একটি দল লাঠিসোঁটা ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে কেন্দ্র দখল করতে যায়। এ সময় তারা বেশ কিছু ব্যালট পেপার ও ভোট দেয়ার সিল ছিনিয়ে নিয়ে যায়। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে সংশ্লিষ্ট কেন্দ্রের প্রিসাইডিং কর্মকর্তাসহ অন্য কর্মকর্তারা ভোটগ্রহণ বন্ধ রেখে একটি কক্ষে আশ্রয় নেন।

সিলেটে প্রিসাইডিং অফিসার লাঞ্ছিত
সিলেটের দক্ষিণ সুরমা উপজেলা পরিষদের নির্বাচনী এলাকার সিরাজ উদ্দিন আহমদ একাডেমি ভোটকেন্দ্রে প্রিসাইডিং অফিসার জাহাঙ্গীর আলমের সঙ্গে আওয়ামী লীগ নেতাদের ধাক্কাধাক্কির ঘটনা ঘটেছে। সকাল সাড়ে ৯টায় উপজেলার শ্রীরামপুর এলাকায় সিরাউদ্দিন আহমদ একাডেমি ভোটকেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে।

আওয়ামী লীগ-বিএনপি পাল্টাপাল্টি ধাওয়া
জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার বাহাদুরবাদ উচ্চবিদ্যালয় কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি-সমর্থিত চেয়ারম্যান পদপ্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে পাল্টাপাল্টি ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। আজ শনিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে দুই পক্ষের অন্তত ১০ জন আহত হয়। এ কারণে ওই ভোটকেন্দ্রে আধা ঘণ্টা ভোটগ্রহণ স্থগিত রাখা হয়।

চুয়াডাঙ্গায় পোলিং এজেন্টদের মারধর
চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদার ভোট কেন্দ্রে জামায়াত-বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীর পোলিং এজেন্টদের মারধর করে বের করে দিয়েছে আওয়ামী লীগ সমর্থকরা।  বিভিন্ন ভোট কেন্দ্রে বিরোধীদলের ভোটারদের  যেতে বাধা দিচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। অন্যদিকে পীরপুর কুল্লা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে জাল ভোট দেয়াকে কেন্দ্র করে বিএনপি-আওয়ামীলীগ সংঘর্ষ হয়। এ সময় পুলিশের লাঠিচার্জে উভয় দলের ছয়জন আহত হয়েছে। এ কেন্দ্রে আধা ঘন্টা ভোটগ্রহণ বন্ধ ছিল।

প্রসঙ্গত, চতুর্থ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তৃতীয় ধাপে ৮১ উপজেলায় নির্বাচনে ভোট ছিল আজ (শনিবার)। এর আগে গত ১৯ ফেব্রুয়ারি প্রথম দফায় ৯৮ উপজেলা ও ২৭ ফেব্রুয়ারি দ্বিতীয় দফায় ১১৬ উপজেলায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিএনপি-জামায়াত সমর্থিত প্রার্থীরা বেশিসংখ্যক উপজেলায় জয় পায়। চতুর্থ দফায় আগামী ২৩ মার্চ ও পঞ্চম দফায় আগামী ৩১ মার্চ ভোট গ্রহণের দিন নির্ধারিত রয়েছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।