দেশ জুড়ে গুম, অপহরণ ও খুনের ঘটনায় সরকারের পদত্যাগ দাবি ফখরুলের

নারায়ণগঞ্জসহ সারা দেশে গুম, অপহরণ ও খুনের ঘটনায় সরকারের পদত্যাগ দাবি করেছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

শনিবার সকালে সদ্য জামিনে কারামুক্ত ছাত্রদলের সভাপতি আব্দুল কাদের ভূঁইয়া জুয়েল ও সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রশিদ হাবিবকে নিয়ে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের মাজারে শ্রদ্ধা জানাতে গেলে ফখরুল সাংবাদিকদের কাছে এ দাবি জানান।
ফখরুল অভিযোগ করেন, “নারায়ণঞ্জের সাত খুনের ঘটনায় সরকারের মন্ত্রী-এমপিরা জড়িত। তাই তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত করতে হবে।” কোনো স্বজনপ্রীতি না করে নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু তদন্ত করে প্রকৃত দোষীদের শাস্তিদানে তিনি সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, “সরকার আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে তাদের নিজের পক্ষে ব্যবহার করে সারা দেশে গুম-খুনের রাজত্ব কায়েম করেছে। এই সরকার ক্ষমতায় থাকার কোনো নৈতিক অধিকার রাখে না।”

সারা দেশে একের পর এক গুম, খুনের ঘটনা প্রসঙ্গে মির্জা ফখরুল বলেন, “সরকার পাঁচ বছর ধরে এ ধরনের কর্মকাণ্ড চালিয়ে আসছে। বিরোধী দলের নেতা-কর্মীদের ভয় ভীতি দেখাতে ও ত্রাস সৃষ্টি করতে তারা একের পর এক অপহরণ ও গুমের আশ্রয় নিচ্ছে।”
নারায়ণগঞ্জের ঘটনা নিয়ে বিএনপি রাজনীতি করছে’ সরকারের এমন বক্তব্যের সমালোচনা করে ফখরুল বলেন, “সরকারের এ কথা জনগণ বিশ্বাস করে না। পুরো ঘটনা জনগণের কাছে পরিষ্কার হয়ে গেছে।”
প্রসঙ্গত, ছাত্রদল সভাপতি জুয়েল ৬ মে কাশিমপুর কারাগার থেকে এবং সাধারণ সম্পাদক হাবিব ৫ মে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি লাভ করেন।

এসময় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব আমান উল্লাহ আমান, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন, নাজিমুদ্দিন আলম, বিএনপির ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক শহিদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, সহ ছাত্রবিষয়ক সম্পাদক সুলতান সালাহ উদ্দিন টুকু, স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক মীর সরাফত আলী সফু, সাংগঠনিক সম্পাদক সফিউল বারী বাবু, ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি আব্দুল কাদের ভুইয়া জুয়েল ও সাধারণ সম্পাদক হাবীবুর রশিদ হাবীবসহ ছাত্রদলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।