সিডিডি এমন বক্তব্যে মন্তব্য করার মতো কিছু নেই বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী

প্রস্তাবিত বাজেটকে লক্ষ্য-বিলাসী তথা বাজেটের লক্ষ্য নির্ধারণে বিলাসিতা করা হয়েছে- সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিডিডি) এমন বক্তব্যে মন্তব্য করার মতো কিছু নেই বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। শুক্রবার বিকেলে ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে বাজেট পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে তিনি এমন মন্তব্য করেন। মুহিত বলেন, ‘ইতোপূর্বে আমার সবক’টি বাজেটই ছিল উচ্চাভিলাষী। এসব বাজেট বাস্তবায়ন করা হয়েছে। দেশকে এগিয়ে নিতে উচ্চাভিলাষ থাকতে হবে। সক্ষমতা থাকলে উচ্চাভিলাষ থাকাটাই সার্থক।’

তিনি বলেন, বাজেটে গত ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের কোনো প্রভাব পড়েনি। নির্বাচনের মাধ্যমে একটি সরকার গঠিত হয়েছে, এ সরকার চলতে থাকবে। সংসদে বিএনপির অনুপস্থিতি প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘বিষয়টি দুঃখজনক। অন্যবার বাজেট উত্থাপনের সময় বিরোধী দল সংসদে উপস্থিত থাকতো না। এবার যে ধরনেরই হোক একটি বিরোধী দল উপস্থিত ছিল। কেউ পুরো গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা ধ্বংস করে দেবে সেজন্য তো আমরা অপেক্ষা করতে পারি না।’

কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দেয়া হবে না জানিয়ে তিনি বলেন, ‘গত বাজেটে স্টক মার্কেট ও জমি কেনায় কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দিয়ে মাত্র ৩৪ কোটি টাকা আয় হয়েছে। এতে বোঝা যায় দেশে কালো টাকা নেই, তাই এখন থেকে এই সুযোগ দেয়া হবে না।’ পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল বলেন, নতুন বিনিয়োগ না আসলেও বর্তমানে বিনিয়োগের যে অবস্থা, তাতেই প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্র অর্জন সম্ভব। আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে ধারাবাহিকভাবে বিনিয়োগ বেড়েছে।’

এছাড়া প্রস্তাবিত বাজেটের রাজস্ব লক্ষ্যমাত্রা অর্জন সম্ভব বলেও মনে করেন তিনি। সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী, তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, অর্থ প্রতিমন্ত্রী আবদুল মান্নান, বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ড. আতিউর রহমানসহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সচিবরা উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।