আজ ২০ দলীয় জোটের বিক্ষোভ মিছিল, বাধা এলে আরো কঠোর কর্মসূচি দেওয়া হবে

আজ শনিবার বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোট সারা দেশে বিক্ষোভ মিছিল করবে। এতে ব্যাপক শোডাউনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। তবে পুলিশ মিছিলে বাধা দিলে কিংবা হামলা-গ্রেপ্তার চালালে আগামীকাল রবিবার থেকে হরতালের ডাক দেয়া হতে পারে।

 

টানা ৩৯ দিনের অবরোধের মধ্যে আজ রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশের জেলা, উপজেলা, পৌরসভা ও মহানগরের সব ওয়ার্ডে বিক্ষোভ মিছিল করার কর্মসূচি দিয়েছে ২০ দলীয় জোট। তবে ঢাকা মহানগরের কোথায়, কখন মিছিল হবে তা বলা হয়নি।

 

সরকারি দল ও পুলিশের সূত্র বলছে, নাশকতার অভিযোগে এ ধরনের কর্মসূচি নিয়ে তাদের রাজপথে নামতে দেওয়া হবে না।

 

এদিকে বিএনপি সূত্র জানায়, মিছিলের জন্য পুলিশের অনুমতি চাওয়া হয়নি। জনসভা ও মাইক ব্যবহারের জন্য পুলিশের অনুমতি নেওয়ার বাধ্যবাধকতা থাকলেও সাধারণত রাজনৈতিক দলগুলো বিক্ষোভ মিছিলের জন্য কোনো অনুমতি চায় না। বিক্ষোভ মিছিলের কর্মসূচি নিয়ে ঢাকা মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক মির্জা আব্বাস ও হাবিব-উন-নবী খান গতকাল এক বিবৃতিতে ২০-দলের সর্বস্তরের নেতা-কর্মীসহ নগরবাসীকে সর্বোচ্চ ত্যাগের মানসিকতা নিয়ে শেষ ধাপের আন্দোলনে আত্মনিয়োগ করার আহ্বান জানিয়েছেন।

 

সরকার ও পুলিশের দায়িত্বশীল সূত্র জানিয়েছে, রাজধানীসহ দেশের সব বিভাগ, জেলা ও উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় পুলিশের পাশাপাশি অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তৎপর থাকবে। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে সরকারের উচ্চপর্যায় থেকে কঠোর নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

 

বিএনপি বলেছে, বিক্ষোভ মিছিলে বাধা দেওয়া হলে কাল রবিবার থেকে ‘সর্বাত্মক’ হরতালসহ আরো কঠোর কর্মসূচি দেওয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়েছে। দলটি আইন অমান্য করা এবং সরকারের বিরুদ্ধে অসহযোগ আন্দোলন শুরু করারও হুমকি দিয়েছে। শুক্রবার দলের পক্ষ থেকে দেওয়া বিবৃতিতে যুগ্ম মহাসচিব সালাহ উদ্দিন আহমদ এ হুমকি দেন।

 

এছাড়া আওয়ামী লীগের যেসব নেতা-মন্ত্রী ও পুলিশের কর্মকর্তা আন্দোলনকারীদের ‘এনকাউন্টার’ ও ‘ক্রসফায়ারে’ হত্যার কথা বলেছেন, তাদের ভবিষ্যতে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে বিচারের আওতায় আনা হবে বলেও বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়।

 

৫ জানুয়ারির বিতর্কিত নির্বাচনের বর্ষপূর্তির দিনে ঢাকায় সমাবেশ করতে না পারায় ৬ জানুয়ারি থেকে সারা দেশে লাগাতার অবরোধ কর্মসূচি দেয় ২০-দলীয় জোট। অবরোধের মধ্যে ছয় দফায় বিভিন্ন মেয়াদে দেশব্যাপী হরতালও দেওয়া হয়।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।