নির্বাচন কমিশন ‌‌‍অপদার্থ অযোগ্য: এমাজউদ্দীন আহমেদ

নির্বাচন কমিশনকে অপদার্থ ও অযোগ্য বলে আখ্যা দিয়ে আদর্শ ঢাকা আন্দোলনের আহবায়ক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি প্রফেসর ড. এমাজউদ্দীন আহমেদ। শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে অলকমিউনিটি ফোরাম আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি একথা বলেন।

 

তিনি বলেন, ‘তিন সিটি করপোরেশন নির্বাচনে কোনো ধরণের নিয়ম কানুন ছিল না। এখানে রিগিং বলতে যা হওয়ার তাই হয়েছে। এসবের রেকর্ড আমাদের কাছে আছে। প্রস্তুত রেখেছি। প্রয়োজনে এসব তথ্য জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে পৌঁছে দেব।’

তিনি বলেন, ‘আগামী জাতীয় নির্বাচনে এসব অনিয়ম-কারচুপির বিষয়গুলোকে সামনে রেখে নির্বাচনের প্রস্তুতি নেব, যদি সুযোগ থাকে।’ এমাজউদ্দীন বলেন, ‘স্থানীয় সরকার নির্বাচনে সরকারের পতন হয় না। সুতরাং সরকারের উচিত ছিল এই নির্বাচনকে স্বচ্ছ করা।

 

কিন্তু তাদের অভ্যাস হয়ে গেছে কারচুপি অনিয়ম করার, পাল্টাবে কি করে। ওই নির্বাচনের দিকে তাকালে আমার কষ্ট হয়।’ তিনি বলেন, ‘এই নির্বাচনে সরকার ও বিরোধী দলের জড়িত হওয়ার কথা না। আইনগতভাবে স্থানীয় নির্বাচন হয়েছে।

 

সিটি নির্বাচনে গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা বাস্তবায়ন করলে সরকারের কি ক্ষতি হতো? কিন্তু সরকারি কর্মকর্তাদের মাধ্যমে অনিয়ম করা হয়েছে।’ নির্বাচন কমিশনের সমালোচনা করে বলেন, ‘আমি গালি দেই না। তবে এটা না বললেই নয়, নির্বাচন কমিশন তাদের অর্পিত দায়িত্ব পালনে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে।

 

এদের অধীনে কোনো নির্বাচন সুষ্ঠু হবে-এমনটা আশা করা যায় না। এরা অপদার্থ ও অযোগ্য।’ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক এই ভিসি বলেন, ‘এই নির্বাচন কমিশন সেনাবাহিনী নিয়েও প্রশ্ন করা সুযোগ করে দিয়েছেন।

 

শান্তি রক্ষায় যারা কাজ করেন আগামীতে তাদের প্রশ্নের সম্মুখীন হওয়া লাগতে পারে। যে নিজের দেশের শান্তি রক্ষা করতে পারেন না তারা অন্য দেশেরটা কিভাবে করবেন।’ এমাজউদ্দীন আহমেদ বলেন, ‘জীবনের শেষ প্রান্তে ভাল কিছু দেখে যেতে চাই। ভালো কিছুর সূচনা করে যেতে চাই। আর বেশিদিন বাঁচার সময় নেই।

 

এমন একটি রাষ্ট্র চাই যেখানে জনগণের কল্যাণ নিশ্চিত হবে। নিরাপত্তা থাকবে।’ সংগঠনের উপদেষ্টা ইঞ্জিনিয়ার আশরাফ উদ্দিন বকুলের সভাপতিত্বে আরো বক্তব্য রাখেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট আহমেদ আযম খান, বিএনপির সহ তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবিব প্রমুখ।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।