প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য দুঃখজনক: বিএনপি

বাংলাদেশে দুই বিদেশি নাগরিক হত্যার সঙ্গে বিএনপি-জামায়াতের হাত আছে- প্রধানমন্ত্রী এই বক্তব্যকে অনভিপ্রেত ও দুঃখজনক বলে মন্তব্য করেছে বিএনপি। রবিবার দুপুরে নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে নিয়মিত ব্রিফিংয়ে প্রধানমন্ত্রী বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় বিএনপির মুখপাত্র ড. আসাদুজ্জামান রিপন এ মন্তব্য বলেন।

 

প্রধানমন্ত্রী যুক্তরাষ্ট্র সফর সম্পর্কে জানাতে আজ বেলা সাড়ে ১১টায় গণভবনে সংবাদ সম্মেলন করেন। সেখানে এক প্রশ্নের জবাবে দুই বিদেশি নাগরিক হত্যা সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘এ ঘটনায় বিএনপি-জামায়াতের মদদ এবং হাত আছে।’

 

বিএনপির মুখপাত্র বলেন, তদন্তাধীন বিষয়ে শাসক দলের প্রধান ও সরকারের বিভিন্ন পর্যায় থেকে বলা হচ্ছে— বিদেশি নাগরিক হত্যার সঙ্গে বিরোধী দলের সংশ্লিষ্টতা রয়েছে। তাদের এ ধরনের বক্তব্য অনভিপ্রেত ও দুঃখজনক। আমরা এ বক্তব্যের নিন্দা জানাই।

 

ড. আসাদুজ্জামান রিপন বলেন, প্রধানমন্ত্রী বিদেশ থেকে ফিরে আজকে (রবিবার) সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, দুই বিদেশি হত্যায় আইএসের জড়িত থাকার বিষয়ে সরকার নিশ্চিত নয়। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীও এমন কথাই বলেছেন। এ ঘটনায় প্রকৃত দোষী যারা, তাদের খুঁজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করছে বিএনপি।

 

তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী নিজেই বলেছেন- মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো শহরের কেউ একজন নিজেকে আইএসের সদস্য দাবি করে বাংলাদেশে দুই বিদেশি হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার করে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছে। তবে এটা নিশ্চিত হওয়ার আগে তদন্ত করতে হবে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীরও বক্তব্য একই ধরনের।

 

তারপরও শাসক দলের কেউ কেউ তদন্তের আগেই এর দায় বিএনপির উপর চাপানোর চেষ্টা করছে বলেও অভিযোগ করেন রিপন। সংবাদ সম্মেলনে রংপুরে জাপানি নাগরিক হত্যার পর বিএনপির দুই নেতাকে সাদা পোশাকে র‌্যাবের ধরে নিয়ে যাওয়াকে দেশের জন্য আশঙ্কার বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

 

আসাদুজ্জামান রিপন বলেন, গতকাল শনিবার সাদা পোশাকে র‌্যাবের লোকজন রংপুর মহানগর বিএনপি নেতা ও রংপুর জেলা যুবদল সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমান লাকু ও বিএনপি নেতা রাশেদুন্নবী খান বিপ্লবকে তাদের বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যায়। তাদের তুলে নেওয়ার সময় তারা র‌্যাব-১৩ এর লোক পরিচয় দেয়। লাকুর বাড়ি র‌্যাব-১৩ কার্যালয়ের পাশেই। এ সময় লাকুর পরিবারের সদস্যরা র‌্যাবের একজনকে চিনতে পারে। পরে র‌্যাব স্বীকার করে তাদের গ্রেপ্তারের কথা।

 

তিনি বলেন, পুলিশের বিভিন্ন সংস্থা প্রায়ই সাদা পোশাকে লোকজনকে তুলে নিয়ে যাওয়ার কথা আমরা শুনে থাকি। কিন্তু সাদা পোশাকে র‌্যাবের লোকজনও মানুষকে তুলে নিয়ে যাওয়ার বিষয়টি বেআইনি। এটাকে কোনোভাবেই আইনসম্মত পদক্ষেপ বলে আমরা মনে করি না।

 

বিএনপির আন্তর্জাতিকবিষয়ক এই সম্পাদক বলেন, আমরা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর এ ধরনের আইনবহির্ভূত কর্মকাণ্ডকে কখনও সমর্থন করি না। আমরা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের আইনবহির্ভূত কর্মকাণ্ড থেকে বিরত থাকতেও আহ্বান জানাই।

 

তিনি বলেন, সাদা পোশাকে বিরোধী দলের লোকজনকে তুলে নিয়ে যাওয়ার ঘটনা র্যা বের নতুন কিছু নয়। কিছুদিন আগে চাঁপাইনবাবগঞ্জের বিএনপির ৬ জন নেতাকর্মীকে তারা তুলে নিয়ে যাওয়ার পরও স্বীকার করেনি। দীর্ঘ ২৪ দিন পর র্যাটবই তাদের গ্রেপ্তারের কথা স্বীকার করে।

 

রিপন জানান, এর আগে কুমিল্লার লাকসামে আমাদের দলের সাবেক এমপি হুমায়ুন কবির হিরুকে তারা তুলে নিয়ে গেছে। বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ইলিয়াস আলীকেও সাদা পোশাকের র্যা ব তুলে নিয়ে গেছে বলেও তার পরিবার অভিযোগ করেছে। আজও তাদের হদিস পাওয়া যায়নি।

 

তিনিন বলেন, এভাবে আইনবহির্ভূতভাবে মানুষকে তুলে নিয়ে যাওয়ার আমরা তীব্র নিন্দা করি। অবিলম্বে রংপুর বিএনপির নেতা লাকু ও বিপ্লবের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করি।

 

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন- বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক হারুন-অর রশিদ, যুবদল সভাপতি সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম আজাদ, সহ-দপ্তর সম্পাদক শামীমুর রহমান শামীম, আসাদুল করিম শাহীন, নির্বাহী কমিটির সদস্য তকদির হোসেন জসিম, যুবদলের সহ-সভাপতি অ্যালবার্ট পি কস্টা প্রমুখ।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।