পৌর নির্বাচনে গণসংযোগে মাঠে নামছেন খালেদা

আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর পক্ষে গণসংযোগে নামবেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। পরিবেশ অনুকূলে থাকলে তিনি রাজধানীর আশপাশের পৌরসভায় দলীয় প্রার্থীর পক্ষে ভোট চাওয়ার মধ্যদিয়ে প্রচার শুরু করবেন।

 

তবে বিএনপি নেত্রী কবে, কখন, কোন এলাকায় যাবেন, এখনো তা চূড়ান্ত হয়নি। দায়িত্বপ্রাপ্ত সংশ্লিষ্ট নেতারা এ ব্যাপারে কাজ করছেন। স্থানীয় নেতাদের সঙ্গে আলাপ করে সূচি চূড়ান্ত করা হবে।

 

নেতাকর্মীদের প্রত্যাশা, খালেদা জিয়া নির্বাচনী মাঠে নামলে পরিস্থিতি পাল্টে যাবে। মামলা-হামলার কারণে যেসব নেতাকর্মী এলাকাছাড়া, তারা নির্বাচনী মাঠে ফিরে আসার সাহস পাবেন। তৃণমূল কর্মী-সমর্থকদের মাঝে চাঙ্গাভাব ফিরে আসবে।

 

এর আগে চলতি বছরের এপ্রিলে রাজধানী ঢাকার উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপি-সমর্থিত দুই প্রার্থী তাবিথ আউয়াল ও মির্জা আব্বাসের পক্ষে প্রচারণায় নামেন খালেদা জিয়া।

 

সে সময়ে তার ওপর একাধিক গণসংযোগে হামলার ঘটনা ঘটে। এবারো সে সব প্রতিকূলতা সামনে রেখে তিনি প্রচারণায় নামার চিন্তা-ভাবনা করছেন বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।

 

উল্লেখ্য, আগামী ৩০ ডিসেম্বর সারাদেশের ২৩৪টি পৌরসভায় ভোটের দিন রেখে তফসিল ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন। ১৫ দিন নির্বাচন পেছানোসহ কয়েকটি শর্তে এই নির্বাচনে অংশগ্রহণের ঘোষণা দিয়েছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোট।

 

ঢাকার আশপাশে যেসব পৌরসভায় নির্বাচন হবে, তার মধ্যে আছে- ঢাকা জেলার ধামরাই ও সাভার, নারায়ণগঞ্জের তারাব ও সোনারগাঁ, মানিকগঞ্জ সদর ও সিংগাইর, মুন্সীগঞ্জ সদর ও মিরকাদিম, নরসিংদী সদর, মাধবদী, মনোহরদী ইত্যাদি।

 

জানা গেছে, আসন্ন পৌরসভা নির্বাচন উপলক্ষে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে বিএনপি। নির্বাচন পরিচালনা ও সার্বিক তদারকির জন্য কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতাদের সমন্বয়ে গঠন করা হয়েছে ১৯টি টিম।

 

বৃহত্তর ১৯ জেলার প্রতিটিতে একটি করে টিম কাজ করছে। তারা স্থানীয়ভাবে নির্বাচনকেন্দ্রিক যাবতীয় তথ্য কেন্দ্রে পাঠানো শুরু করেছেন।

 

এই কমিটি বিএনপি নেতাকর্মীদের হয়রানিসহ যাবতীয় অনিয়ম কেন্দ্রে অবহিত করবেন। এছাড়া সারাদেশে নির্বাচন মনিটরের জন্য কেন্দ্রীয়ভাবে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।

 

সারাদেশ থেকে প্রাপ্ত তথ্য তাৎক্ষণিকভাবে গণমাধ্যমে তুলে ধরাসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। পাশাপাশি নির্বাচন কমিশনকে চাপে রাখতে যে কোনো অনিয়ম তাৎক্ষণিকভাবে তাদের (ইসি) অবহিত করা হবে।

 

এ বিষয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘আন্দোলনের অংশ হিসেবেই নির্বাচনে যাচ্ছি আমরা। নৌকার সঙ্গে ধানের শীষের এ লড়াইকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়েছি আমরা।’

 

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘চেয়ারপারসন সরকারি কোনো সুযোগ-সুবিধা গ্রহণ করছেন না, তাই তার নির্বাচনী প্রচারে নামতে কোনো বাধা নেই।’

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।