ভারতের বিরুদ্ধে সরকার ‘নতজানু’

পরিবেশ বিপন্ন হবে জেনেও ‘নতজানু সরকার’ দেশের স্বার্থ জলাঞ্জলি দিয়ে সুন্দরবনের রামপালে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র করছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

 

শনিবার দুপুরে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে সুন্দরবন দিবস-২০১৬ উপলক্ষে ‘সুন্দরবন সুরক্ষায় আমাদের করণীয়’ শীর্ষক এক গোলটেবিল আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

 

রিজভী বলেন, ‘একদিকে তিনি (প্রধানমন্ত্রী) পরিবেশ সম্মেলন করছেন অন্যদিকে সুন্দরবনের পরিবেশ ধ্বংস করতে রামপালে তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন করছেন। এই বৈসাদৃশ্য পৃথিবীতে আমি আর দেখিনি।’

 

বক্তৃতায় একটি ইংরেজি দৈনিকের সম্পাদকের ভূমিকার কথা উল্লেখ করে রুহুল কবির রিজভী বলেন, কাসিম বাজার কুঠিতে যারা ষড়যন্ত্র করলো তাদের বিষয়টি বড় হলো।

 

যে যুদ্ধের ময়দানে মীর জাফরের ভূমিকা পালন করলো তাকে সরকারের মন্ত্রীরা বললেন- তার ভূমিকা অব্রাহাম লিংকনের মতো। এই বৈসাদৃশ্য পৃথিবীতে আমি দেখিনি।

 

কাসিম বাজার কুঠির ষড়যন্ত্রের ঘসেটি বেগমকে ধরছেন, রায় দুর্লভকে ধরছেন অথচ যুদ্ধের ময়দানে যারা বেঈমানি করেছে তাদেরকে আপনি মহিমান্বিত করলেন। আপনার মন্ত্রীরা মঈন ইউকে অব্রাহাম লিংকনের সঙ্গে তুলনা করলেন।

 

আওয়ামী লীগের প্রবীণ রাজনীতিবিদ সাবেক সাধারণ সম্পাদক আব্দুল জলিলের উদাহরণ টেনে রুহুল কবির রিজভী বলেন, প্রবীণ নেতা আব্দুল জলিল বলেছিলেন- আওয়ামী লীগের কেবিনেটের অধিকাংশই ডিজিএফআইয়ের এজেন্ট। ওই সময় (ওয়ান ইলেভেন) তারা নিজেদের বাঁচাতে আত্মরক্ষা করেছেন আঁতাত করে। এই কারণে তাদের অনেকেই গ্রেপ্তার হননি। আর তারাই পরবর্তীতে মন্ত্রী হয়েছেন।

 

প্রধানমন্ত্রীর প্রতি প্রশ্ন ছুড়ে রিজভী বলেন- তাহলে এই সমস্ত মীরজাফরদের কেবিনেটে নিলেন কী ভাবে? আর আপনার জোটের একজন প্রধান শরীক হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ। তিনি বলেছেন এক এগারোর জন্যই আজ ক্ষমতায় আছেন শেখ হাসিনা।

 

অথচ এই এক এগারোতে সব চেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন খালেদা জিয়া। এ জন্য ইংরেজি পত্রিকার সম্পাদক ‍দুঃখ প্রকাশ করেননি। শুধু প্রধানমন্ত্রীর জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছেন ওই সময়ের প্রতিবেদনের জন্য-যোগ করেন রিজভী।

 

ভারতের সঙ্গে আওয়ামী লীগের গভীর প্রেম উল্লেখ করে রিজভী বলেন, ভারতের সঙ্গে বৈষ্ণব প্রেম, ‘মেরেছ কলসির কানা, তাই বলে কী প্রেম দেবো না।

 

এ সময় অ্যাটর্নি জেনারেলেরও সমালোচনা করেন রিজভী।

 

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সেভ দ্য সুন্দরবন ফাইন্ডেশনের চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ শাহজাহান।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।