দুই মন্ত্রীর অপসারণ চায় সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি

প্রধান বিচারপতি ও বিচারাধীন মামলার বিষয়ে বক্তব্য দেয়ায় দুই মন্ত্রীর অপসারণ ও শাস্তি দাবি করেছে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি। রবিবার আইনজীবী সমিতির মিলনায়তনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলন সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন এই আহ্বান জানান।

 

খন্দকার মাহবুব হোসন বলেন, সরকার বিচার বিভাগকে নিয়ন্ত্রণ করে খেয়াল খুশিমতো ব্যবহারের অপচেষ্টা চালাচ্ছে। দুই মন্ত্রীর বক্তব্য সর্বোচ্চ ন্যায়বিচারের  ক্ষেত্রে আঘাত ছিল। এই ঔদ্ধত্যপূর্ণ বক্তব্য বিচার বিভাগকে অবজ্ঞা ও অবমাননা করার শামিল।

 

তিনি বলেন, আমরা আশা করি সর্বোচ্চ আদালত বিচার বিভাগের ভাবমূর্তি রক্ষায় অবশ্যই আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। ব্যবস্থা গ্রহণ করা না হলে দেশবাসীও মনে করবে সুপ্রিম কোর্ট ক্ষমতাসীন সরকারের রক্তচক্ষু দেখে ভীত-সন্ত্রস্ত।

 

শনিবার ঢাকায় এক অনুষ্ঠানে খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম এবং মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

 

জামায়াতে ইসলামীর নেতা মীর কাসেম আলীর মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের গাফিলতির সমালোচনা করায় প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহাকে সরে দাঁড়ানোর আহ্বান জানান। দুই মন্ত্রীর বক্তব্য নিয়ে বিচারাঙ্গন এবং রাজনীতিতে তীব্র বিতর্ক শুরু হয়েছে।

 

খন্দকার মাহবুব অভিযোগ করেন, সরকার বিচার বিভাগকে নিয়ন্ত্রণের জন্য পায়তারা করছে। মীর কাসেম আলীর মামলা নিয়ে দুই মন্ত্রীর বক্তব্য সেটাকে আরো স্পষ্ট করে দিয়েছে।

 

তিনি আরো বলেন, যেহেতু সংবিধান অনুযায়ী বিচার বিভাগ স্বাধীন এবং প্রধান বিচারপতি বার বার এটা উচ্চারণ করে যাচ্ছেন। সে ক্ষেত্রে এরূপ ঔদ্ধত্বপূর্ণ বক্তব্য বিচার বিভাগকে সম্পূর্নভাবে অবজ্ঞা ও অবমাননা করার সামিল।

 

এক প্রশ্নের জবাবে খন্দকার মাহবুব বলেন, ‘দুই মন্ত্রী সংবিধান লংঙ্ঘন করেছেন।’

 

সুপ্রিমকোর্ট বারের সম্পাদক ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকনের পরিচালনায় সংবাদ সম্মেলনে বারের সহ সম্পাদক মাজেদুর রহমান পাটোয়ারী উজ্জল, সদস্য অ্যাডভোকেট মির্জা আল মাহমুদ উজ্জল উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।