ষষ্ঠ ধাপে নির্বাচনী সহিংসতায় নিহত আরো তিন

ষষ্ঠ ও শেষ ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আজ ফেনী, নোয়াখালী ও ময়মনসিংহে নির্বাচনী সহিংসতায় তিনজন নিহত হয়েছে। এ নিয়ে চলমান ইউপি নির্বাচনে এ পর্যন্ত ১১৩ জন মারা গেছে। আহত হয়েছেন অন্তত ১০ হাজার মানুষ।

 

এবারই প্রথম দলীয়ভাবে ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন দেয়া হয়। এতে সবচেয়ে বড় বিপদে পড়ে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। বহু স্থানেই আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে দলটি অনেক স্থানীয় প্রভাবশালী নেতা বিদ্রোহী প্রার্থী হন।

 

দেখা গেছে, নির্বাচনী সহিংসতার মূলে রয়েছে আওয়ামী লীগের মনোনীত ও বিদ্রোহী প্রার্থীর মধ্যে বিরোধ। নির্বাচনী সহিংসতায় এখন পর্যন্ত যত লোক মারা গেছে তার অর্ধেকের বেশি আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী।

 

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা বলছেন, প্রাণহানির দিক থেকে এবারের ইউপি নির্বাচন বাংলাদেশে নতুন রেকর্ড গড়েছে।

 

ফেনীতে নিহত এক

ফেনীর সোনাগাজীতে ভোটকেন্দ্রে দুই পক্ষের গোলাগুলিতে একজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় প্রিসাইডিং অফিসারসহ আহত হয়েছেন আরো সাতজন।

 

শনিবার বেলা পৌনে ১১টার দিকে থানার চরচান্দিয়া ইউনিয়নের চরভৈরব সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এই ঘটনা ঘটে। তবে তাৎক্ষণিক হতাহতদের নাম-পরিচয় জানা যায়নি।

 

সোনাগাজী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) হুমায়ুন কবির খবরের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, নিহতের লাশ ফেনী সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

 

নোয়াখালীতে ছাত্রলীগ নেতা নিহত

নোয়াখালী সদর উপজেলায় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন নিয়ে দুই সদস্য প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষে আরাফাত (২৩) নামে এক ছাত্রলীগ নেতা নিহত হয়েছেন।

 

শনিবার উপজেলার নেয়াজপুর ইউনিয়নের ভেলানগর এবতেদায়ি মাদ্রাসা কেন্দ্রের বাইরে এ ঘটনা ঘটে বলে জানান নোয়াখালীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এ কে এম জহিরুল ইসলাম।

 

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ইউনিয়নের ভেলা নগর মোহাম্মদিয়া ইবতেদিয়া মাদ্রাসা ভোট কেন্দ্রে এ সংঘর্ষ হয়। এসময় আরাফাত গুলিবিদ্ধ হন। এ অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে প্রথমে স্থানীয় একটি হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়ার পর উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকা নেওয়ার পথে দুপুরে তিনি মারা যান।

 

নিহত ইয়াসিন আরাফাত ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক। তিনি ভেলানগর গ্রামের মো. সেলিমের ছেলে।

 

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বলেন, কেন্দ্রের বাইরে দুই সদস্য প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষে ইয়াসিন আরাফাতসহ চার জন আহত হন। ঢাকায় নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।

 

ময়মনসিংহে একজনের মৃত্যু

ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ের সালটিয়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে একটি কেন্দ্রে দুই ইউপি সদস্য প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনায় মো. শাহজাহান (৫২) নামে একজনের মৃত্যু হয়েছে।

 

এতে উভয় পক্ষের কমপক্ষে ৩০ জন আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ। গুলিবিদ্ধ হয়েছেন তিনজন। নিহত শাহজাহান ঐ ইউনিয়নের বাগুয়া গ্রামের বাসিন্দা। শনিবার দুপুরে ঐ ইউনিয়নের পুকুরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভোট কেন্দ্রে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

 

গফরগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দায়িত্বরত চিকিৎসক আশিক মাহমুদ বলেন, ‘শাহজাহান দুইপক্ষের সংঘর্ষের সময় হার্ট অ্যাটাক করেন। মৃত অবস্থায় তাকে হাসপাতালে আনা হয়। তার শরীরে আঘাতের কোনো চিহ্ন নেই।’

 

গুলিবিদ্ধরা হলেন- নাজমুল (৩০), ফয়সাল (২২) ও মোজাহিদ (২৯)। তাদের ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

 

স্থানীয় সূত্র জানায়, ওই কেন্দ্রে জাল ভোট দেওয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে দুই ইউপি সদস্য প্রার্থী মোশাররফ হোসেন (মোরগ) ও আব্দুল করিমের (তালা-চাবি) সমর্থকদের মাঝে দফায় দফায় সংঘর্ষ বাঁধে।

 

এদিকে শনিবার ছয় ধাপের ইউপি নির্বাচনের পরিসংখ্যান তুলে ধরে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান বলেন, ‘ছয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে সহিংসতায় অন্তত ১১৩ জন নিহত ও ১০ হাজার জন পঙ্গু হয়েছেন।’

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।