২৩, ২৪ ও ২৫ জানুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় পরবর্তী শুনানি

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় শুনানি আজকের মত সমাপ্ত হয়েছে। পরবর্তী শুনানি ২৩,২৪ ও ২৫ জানুয়ারি।

বৃহস্পতিবার বিকাল তিনটার দিকে ঢাকার ৫নং বিশেষ জজ ড. আখতারুজ্জামানের আদালতে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও মামলায় শুনানি আজকের মত সমাপ্ত হয়। এর আগে সাড়ে ১১টা থেকে এ মামলার অন্য দুই আসামি কাজী সলিমুল হক কামাল ওরফে ইকোনো কামাল ও শরফুদ্দীন আহমেদের পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শুরু হয়।

বৃহস্পতিবার খালেদা জিয়ার মায়ের মৃত্যুবার্ষিকী। এজন্য তার আইনজীবী আবদুর রেজাক খান বৃহস্পতিবার মামলা মুলতবি রাখার আবেদন করেন।

আদালত এ আবেদনের ওপর রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজলকে জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, যেহেতু এটা ধর্মীয় ব্যাপার তাই খালেদা জিয়ার পক্ষে সময়ের আবেদন মঞ্জুর করলে আমার কোনো আপত্তি নেই। এরপর আদালত বলেন, আগামী ধার্য তারিখ পর্যন্ত তিনি (খালেদা জিয়া) জামিনে থাকবেন। আর অন্য আসামিদের পক্ষে আগামী বৃহস্পতিবার যুক্তি উপস্থাপন চলবে।

এর আগে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় হাজিরা দিতে আদালতে পৌঁছেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। দুপুর ১২টার দিকে পুরান ঢাকার বকশীবাজারের আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে স্থাপিত অস্থায়ী বিশেষ আদালতে পৌঁছান তিনি।

এর আগে সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটে গুলশানের বাসা থেকে আদালতের উদ্দেশে রওনা দেন তিনি। বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির এসব তথ্য নিশ্চিত করেন।

ঢাকার ৫নং বিশেষ জজ ড. আখতারুজ্জামানের আদালতে দুর্নীতির দুই মামলায় বৃহস্পতিবার দ্বাদশ দিনের মতো যুক্তিতর্ক চলবে।

বুধবার খালেদা জিয়ার আইনজীবী অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন জানিয়েছিলেন যে, বৃহস্পতিবার ধার্য দিনে আদালতে উপস্থিত হবেন খালেদা জিয়া।

তিনি আরো জানিয়েছিলেন, খালেদা জিয়া শুনানির মুলতবি চেয়েছিল। তা মঞ্জুর না করে আদালত খালেদাকে ব্যক্তিগত হাজিরা থেকে ওই দিনের জন্য অব্যাহতি দেন। তিনি ব্যক্তিগত জামিন চাননি। তাই তিনি বৃহস্পতিবার আদালতে আসবেন।

বুধবার যুক্তি-তর্ক শুনানির বিরতির পর খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা এ আবেদন জানান। এরপর আসামি শরফুদ্দিন আহমেদের পক্ষে যুক্তি-তর্ক উপস্থাপন করেন আইনজীবী আহসানুল্লাহ।

এর আগে মঙ্গলবার ১০ম দিনের মতো জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদার পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন শেষ করেন ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। এর পর আসামি ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদের পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন করেন তার আইনজীবী আহসান উল্লাহ। তার পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন শেষ না হওয়ায় বুধবার দিন ধার্য করেন আদালত।

এর আগে ১১ জানুয়ারি ৯ম দিনের মতো জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদার পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন করেন ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার। পরবর্তী সময় যুক্তি উপস্থাপনের জন্য ১৬, ১৭ ও ১৮ জানুয়ারি দিন ধার্য করেন আদালত।

১৯ ডিসেম্বর জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার যুক্তি উপস্থাপন শুরু হয়। এদিন রাষ্ট্রপক্ষ খালেদা জিয়াসহ সব আসামির সর্বোচ্চ শাস্তি চেয়ে যুক্তি উপস্থাপন শেষ করেন।

এরপর ২০, ২১, ২৬, ২৭ ও ২৮ ডিসেম্বর এবং ৩ , ৪, ১০, ১১ ও ১৬ জানুয়ারি খালেদার পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন করেন তার আইনজীবীরা।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের নামে এতিমদের জন্য বিদেশ থেকে আসা ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৭১ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রাজধানীর রমনা থানায় প্রথম মামলাটি করা হয়।

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্টের নামে অবৈধভাবে ৩ কোটি ১৫ লাখ ৪৩ হাজার টাকা লেনদেনের অভিযোগে ২০১০ সালের ৮ আগস্ট রাজধানীর তেজগাঁও থানায় একটি মামলা করে দুদক।