সুপ্রিমকোর্ট বারের নির্বাচনে দলের সাথে বিশ্বাস ঘাতকদের ক্ষমা করা হবে না: কাদের

আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন সুপ্রিমকোর্ট বারের নির্বাচনে দলের সাথে বিশ্বাস ঘাতকদের ক্ষমা করা হবে না ।মঙ্গলবার দুপুরে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে যারা দলীয় প্রার্থীদেরকে ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে হারিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বিস্তারিত আসছে……

স্বাধীনতা বিরোধীদের বিষ বৃক্ষের মূলোৎপাটন করতে হবে: ওবায়দুল কাদের
এর আগে ২৬মার্চ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, স্বাধীনতা বিরোধীদের বিষ বৃক্ষের মূলোৎপাটন করতে হবে।

তিনি আরো বলেন, আমাদের এখনো অন্তরায় আছে। সেটা হচ্ছে বাংলাদেশের স্বাধীনতা বিরোধীরা মুক্তিযুদ্ধের মূল্যবোধের বিরুদ্ধে কালো ছায়া বিস্তার করে আছে।

সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল আরো বলেন, জাতিসংঘ কর্তৃক বাংলাদেশকে উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে প্রথম ধাপ উত্তরণের যে স্বীকৃতিই এটাই প্রমাণ করে বাংলাদেশ কতটা এগিয়েছে।

সোমবার (২৬ মার্চ) সকালে জাতীয় স্মৃতিসৌধে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে শহীদদের ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো শেষে তিনি সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

এসময় স্বাধীনতা বিরোধীদের প্রতি সবার সোচ্চার থাকতে হবে বলেও জানান ওবায়দুল কাদের।

এর আগে সকাল ৬টা ১ মিনিটে জাতীয় স্মৃতিসৌধের বেদিতে প্রথমে রাষ্ট্রপতি এরপর ৬টা ২ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। তারা ১৯৭১ সালের মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের বীর শহীদদের স্মরণে কয়েক মিনিট নীরবে দাঁড়িয়ে থাকেন।

পড়ুন ওবায়দুল কাদেরের আরো খবর…
নির্বাচনে বিএনপি নামক বিষফোঁড়া জনগণ প্রত্যাখ্যান করবে: ওবায়দুল কাদের
ঢাকা: ‘নির্বাচনের ভয় অনেক আগেই জয় করেছে আওয়ামী লীগ। আগামী নির্বাচনে বিএনপি নামক বিষফোঁড়া জনগণ প্রত্যাখ্যান করবে’ বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

শুক্রবার (১৬ মার্চ) সকালে ধানমণ্ডির ৩২ নম্বরে রাসেল স্কয়ারে আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যানবিষয়ক উপ-কমিটির উদ্যোগে গরীবদের মধ্যে ১০০ রিকশাভ্যান বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। এসময় আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপ-কমিটির চেয়ারম্যান এ এফ এম ফখরুল ইসলাম মুন্সির সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন সদস্য সচিব সুজিত রায় নন্দী প্রমুখ।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আরও বলেন, তবে এবার আওয়ামী লীগ বিশ্বাস করে, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির সেই দিন আর ফিরে আসবে না। পেট্রলবোমার রাজনীতি এই দেশের মানুষ চায় না। যারা বোমা মেরে মানুষ হত্যা করে, এই দেশের মানুষ তাদের কোনো দিন গ্রহণ করবে না।

তিনি বলেন, ‘বিএনপির জোয়ারের দিন শেষ। বিএনপির রাজনীতিতে এখন ভাটার টান। তাদের হাজার হাজার নেতাকর্মী আওয়ামী লীগে যোগ দেয়ার অপেক্ষায় আছে। আমরা নেত্রীর সবুজ সংকেত পাইনি, তাই অপেক্ষা আছি।’

কাদের বলেন, বিএনপির রাজনীতি এখন তাদের নিজেদের মধ্যে, তাদের গোড়া সমর্থকদের মধ্যে। সাধারণ মানুষ তাদের চায় না। এমনকি আগে যারা বিএনপি সমর্থন করত, কর্মী-সমর্থকেরাও আজকে বিএনপি ছেড়ে যাচ্ছে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নে-অর্জনে জনগণ খুশি, কাজেই আগামী নির্বাচন নিয়ে আমাদের কোনো প্রকার সংকোচ, কোনো প্রকার ভয় নেই।’ তিনি বলেন, ‘কারণ উন্নয়ন-অর্জন করে আমাদের কর্ম দিয়ে আমরা ভয়কে জয় করে ফেলেছি। নির্বাচনে বিজয় একটা আনুষ্ঠানিকতা মাত্র।’

আওয়ামী লীগ ও সরকারের বিরুদ্ধে বিএনপি কথা বললেও তা নিয়ে আওয়ামী লীগের কোনো মাথাব্যথা নেই বলে জানান ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, বিএনপি এত চেষ্টা করেছে একটা আন্দোলন করার জন্য, মানুষ কিন্তু সাড়া দেয়নি। তার কারণ হচ্ছে, এ দেশের জনগণ বিএনপির নেতিবাচক রাজনীতিকে পছন্দ করে না। প্রত্যাখ্যান করেছে।

সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমরা জানি, আমরা বিশ্বাস করি, এ দেশের জনগণ বিএনপি নামক বিষফোড়ার দলটিকে প্রত্যাখ্যান করেছে। বিএনপির আন্দোলনের ডাকে জনগণ সাড়া দিচ্ছে না, কাজেই বিএনপির কোন নেতা কী বলল, সরকারের বিরুদ্ধে বিষোদগার করল, এ নিয়ে আমাদের কোনো মাথাব্যথা নেই। আমাদের মাথাব্যথা, কীভাবে আমাদের চলমান উন্নয়নের কাজগুলো সমাপ্ত করব।’ তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ মানুষের মন জয় করার চেষ্টা করছে। আর বিএনপি নির্বাচন ভন্ডুল করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত।

এসময় তিনি নেপালে বিমান দুর্ঘটনার বিষয়ে আলোকপাত করতে গিয়ে বলেন, বাংলাদেশ থেকে ৮ সদ্যস্যের মেডিকেল টিম যাওয়ায় নেপাল থেকে বিমান দুর্ঘটনায় নিহতদের মরদেহ দেশে আনার প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত হবে।

নেপালে উড়োজাহাজ বিধ্বস্তে হতাহতদের প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, ‘বিমান দুর্ঘটনায় নেপালে নিহত ব্যক্তিদের লাশ যত দ্রুত সম্ভব দেশে ফিরিয়ে আনতে কাজ করছে সরকার। আমাদের প্রাধনমন্ত্রী রাষ্ট্রীয় সফর সংক্ষিপ্ত করে দেশে ফিরে এসেছেন। কীভাবে হতাহতদের দেশে ফিরিয়ে আনা যায়-সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করা যায় তা নিয়ে কাজ করছেন। এখন আমাদের মূল দায়িত্ব নিহতদের লাশ দ্রুত ফিরিয়ে এনে স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা এবং দাফন সম্পন্ন করা।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘গতকাল আমাদের দেশের তিন মেধাবী পরিবারের বাসায় গিয়েছিলাম। সহানুভুতি ও সহমর্মীতা জানাতে। এর মধ্যে একজন পাইলট, একজন কো-পাইলট আর একজন শশী নব-বিবাহিত।’