প্রতিটি গ্রামকে নগর হিসেবে গড়ে তুলবে সরকার: প্রধানমন্ত্রী

প্রতিটি গ্রামকে নগর হিসেবে গড়ে তুলবে বর্তমান সরকার, প্রত্যেকে নাগরিক সুবিধা পাবে বলে ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।শনিবার রাজধানীর মতিঝিলে সরকারি কর্মচারীদের জন্য বহুতল ভবনের উদ্বোধন শেষে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন। এদিন রাজধানীর আজিমপুর ও মতিঝিলে সরকারি কর্মচারীদের জন্য ১০টি বহুতল ভবনের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর মধ্যে আজিমপুরে রয়েছে ছয়টি, মতিঝিলে রয়েছে চারটি বহুতল ভবন।

 

শেখ হাসিনা বলেন, রাজধানীতে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য ৯ হাজার ৭০২টি ফ্লাট নির্মাণ করার জন্য প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে এসব ফ্লাট নির্মাণ করে আবাসন সমস্যার সমাধান করা হবে। শুধু সরকারি কর্মচারী-কর্মকর্তা নয়, বেসরকারিভাবেও মানুষ যেন কিস্তিতে ফ্লাট নিতে পারে সরকার সে ব্যবস্থা করছে।

 

তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পরিকল্পনা ছিল সব মানুষের জন্য গৃহনির্মাণ নিশ্চিত করা। তিনি বাস্তবায়ন করতে পারেননি। আমরা তার স্বপ্ন বাস্তবায়ন করছি। ইনশাল্লাহ আমরা জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তুলতে পারব।শেখ হাসিনা বলেন, আপনারা যারা এসব ফ্ল্যাটে বসবাস করবেন তাদের কাছে আমার কিছু অনুরোধ থাকবে। তা হলো বিদ্যুৎ, পানি ব্যবহার হিসেব করে করবেন। নিজেদের ফ্ল্যাট নিজেরা পরিষ্কার রাখবেন।এদিন মতিঝিল সরকারি কলোনিতে বহুতল আবাসিক ভবন উদ্বোধনের পর আজিমপুর সরকারি কলোনিতেও বহুতল আবাসিক ভবনের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।

 

আজিমপুরে আবাসিক ভবন উদ্বোধনকালে প্রধানমন্ত্রী শিশুদের জন্য খেলার মাঠ, বড়দের জন্য হাঁটার জায়গা এবং জলাশয় রাখার তাগিদ দেন। মতিঝিলে নতুন ভবনের উদ্বোধন করার পর সেখানকার পুরনো জরাজীর্ণ ভবন ভেঙে মাঠ তৈরির নির্দেশনা দেন তিনি।অনুষ্ঠানে গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বি, গণপূর্ত মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত স্থায়ী কমিটির সভাপতি দবিরুল ইসলাম, মন্ত্রণালয়ের সচিব শহীদুল্লাহ খন্দকার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

 

প্রতিটি গ্রামকে নগর হিসেবে গড়ে তুলবে বর্তমান সরকার, প্রত্যেকে নাগরিক সুবিধা পাবে বলে ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।শনিবার রাজধানীর মতিঝিলে সরকারি কর্মচারীদের জন্য বহুতল ভবনের উদ্বোধন শেষে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন। এদিন রাজধানীর আজিমপুর ও মতিঝিলে সরকারি কর্মচারীদের জন্য ১০টি বহুতল ভবনের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর মধ্যে আজিমপুরে রয়েছে ছয়টি, মতিঝিলে রয়েছে চারটি বহুতল ভবন।

 

শেখ হাসিনা বলেন, রাজধানীতে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য ৯ হাজার ৭০২টি ফ্লাট নির্মাণ করার জন্য প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে এসব ফ্লাট নির্মাণ করে আবাসন সমস্যার সমাধান করা হবে। শুধু সরকারি কর্মচারী-কর্মকর্তা নয়, বেসরকারিভাবেও মানুষ যেন কিস্তিতে ফ্লাট নিতে পারে সরকার সে ব্যবস্থা করছে।

 

তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পরিকল্পনা ছিল সব মানুষের জন্য গৃহনির্মাণ নিশ্চিত করা। তিনি বাস্তবায়ন করতে পারেননি। আমরা তার স্বপ্ন বাস্তবায়ন করছি। ইনশাল্লাহ আমরা জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তুলতে পারব।

 

শেখ হাসিনা বলেন, আপনারা যারা এসব ফ্ল্যাটে বসবাস করবেন তাদের কাছে আমার কিছু অনুরোধ থাকবে। তা হলো বিদ্যুৎ, পানি ব্যবহার হিসেব করে করবেন। নিজেদের ফ্ল্যাট নিজেরা পরিষ্কার রাখবেন।এদিন মতিঝিল সরকারি কলোনিতে বহুতল আবাসিক ভবন উদ্বোধনের পর আজিমপুর সরকারি কলোনিতেও বহুতল আবাসিক ভবনের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।

 

আজিমপুরে আবাসিক ভবন উদ্বোধনকালে প্রধানমন্ত্রী শিশুদের জন্য খেলার মাঠ, বড়দের জন্য হাঁটার জায়গা এবং জলাশয় রাখার তাগিদ দেন। মতিঝিলে নতুন ভবনের উদ্বোধন করার পর সেখানকার পুরনো জরাজীর্ণ ভবন ভেঙে মাঠ তৈরির নির্দেশনা দেন তিনি।

 

অনুষ্ঠানে গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বি, গণপূর্ত মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত স্থায়ী কমিটির সভাপতি দবিরুল ইসলাম, মন্ত্রণালয়ের সচিব শহীদুল্লাহ খন্দকার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।