নির্বাচনকালে নিরপেক্ষ ও স্বাধীন নির্বাচন কমিশন গঠনের মাধ্যমে মানুষকে নিরাপদে ভোট দেয়ার অধিকার ফিরিয়ে দিতে হবে: মির্জা ফখরুল

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন বিএনপি নির্বাচনে যেতে চায়। গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে নির্বাচন ছাড়া আর কোনো পন্থা নেই। তবে নির্বাচনকালে নিরপেক্ষ ও স্বাধীন নির্বাচন কমিশন গঠনের মাধ্যমে মানুষকে নিরাপদে ভোট দেয়ার অধিকার ফিরিয়ে দিতে হবে ।

 

সোমবার দুপুরে ঠাকুরগাঁও জেলা বিএনপি আয়োজিত শহরের আশ্রমপাড়াস্থ মহল্লার হাওলাদার কমিউনিটি সেন্টারে দলের বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। জেলা বিএনপির সভাপতি তৈমুর রহমানের সভাপতিত্বে দলের ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা ও রুহিয়া থানা বিএনপির বর্ধিত সভায় আরও বক্তব্য দেন-জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মির্জা ফয়সল আমীন, সহসভাপতি শাহেদ কামাল চৌধুরী ডালিম, আনোয়ার হোসেন লাল, আবদুল হামিদ প্রমুখ।

 

আওয়ামী লীগের দল ও দেশ পরিচালনা কে করছে, এমন প্রশ্ন তোলেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল। রাজনৈতিক ও দেশের বাইরের কোনো শক্তি দেশ পরিচালিত করছে বলেও এই অভিযোগ করেন তিনি। কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের সমর্থন জানিয়ে তিনি অবিলম্বে গ্রেপ্তার হওয়া ছাত্র-শিক্ষকদের মুক্তি দাবি করেন।

সেতু ও সড়ক যোগাযোগমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের এক বক্তব্যের প্রসঙ্গে মির্জা ফখরুল আরও বলেন, আওয়ামী লীগ জনবিচ্ছিন্ন হয়েছে এবং রাজনৈতিকভাবেও দেউলিয়া হয়েছে। ক্ষমতা গেলে তাদের পরিণাম কী হয়, এমন শঙ্কা প্রকাশ করে তিনি বলেন, মানুষ দেখানো নির্বাচন দেয় এই সরকার। তা আবার স্থানীয় সরকারের । পুলিশ ও র‌্যাব দিয়ে কেন্দ্র দখল করে এবং মানুষশূন্য করে ভোট আয়োজন করে, যা খুলনা ও গাজীপুরে দৃশ্যমান হয়েছে।

 

ফখরুল বলেন, মাদকবিরোধী অভিযানের নামে সরকার প্রতিদিন মানুষ হত্যা করছে। তাদের হাত এখন রক্তে রাঙা। অগণতান্ত্রিক ও স্বৈরশাসক এই সরকার ক্ষমতার মোহে এক নায়কত্ব বজায় রাখতে চোরাগলিতে হাঁটছে। শুধুমাত্র রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার বিএনপির চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান। মিথ্যা অভিযোগে বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগারে বন্দি রাখা হয়েছে। আর নির্বাসন দেয়া হয়েছে তারেক রহমানকে ।