তিন শর্তে নির্বাচনে যেতে রাজি বিএনপি, দলের ৪০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে পল্টনে নেতাদের সুস্পষ্ট ঘোষণা - খবর তরঙ্গ
শিরোনাম :

তিন শর্তে নির্বাচনে যেতে রাজি বিএনপি, দলের ৪০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে পল্টনে নেতাদের সুস্পষ্ট ঘোষণা



অনলাইন ডেস্ক, (খবর তরঙ্গ ডটকম)

দলের ৪০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে ঢাকার জনসমাবেশে বিএনপি নেতারা আসন্ন সাধারণ নির্বাচন নিয়ে দলের অবস্থান পরিষ্কার করার চেষ্টা করেছেন। নির্বাচনের আগে বিএনপি কী চায় তা নিয়ে কেন্দ্রীয় নেতারা সরকারকে কিছু বার্তা দেওয়ার চেষ্টা করেছেন।

জনসমাবেশে বিএনপি নীতিনির্ধারকরা প্রধানত তিনটি দাবি তুলে ধরার চেষ্টা করেছেন – খালেদা জিয়াকে দ্রুত মুক্তি দিতে হবে, নির্বাচনী তফশিল ঘোষণা করার আগে সংসদ ভেঙ্গে দিয়ে সরকারকে পদত্যাগ করতে হবে এবং নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করতে হবে।

দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে একটি খোলা ট্রাকের ওপর তৈরি মঞ্চ থেকে বক্তৃতার সময় বিএনপি নেতাদের কণ্ঠে বেশ ‘আত্মবিশ্বাসের’ সুর শোনা গেছে।

বিএনপি নেতারা হুঁশিয়ার করেছেন, দ্রুত তাদের নেত্রী খালেদা জিয়ার মুক্তি দেওয়া না হলে ব্যাপক আন্দোলন শুরু করা হবে।

দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকারর মোশাররফ হোসেন সরকারের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘আন্দোলনের আগে খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিন।’

নির্বাচনী তফশিল ঘোষণার আগে সরকারতে পদত্যাগ করতে বলেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

একইসাথে সমস্ত কেন্দ্রীয় নেতারা তাদের ভাষণে বর্তমান নির্বাচন কমিশনের তীব্র সমালোচনা করেন এবং কমিশন ঢেলে সাজানোর দাবি করেন।

বিএনপির সমাবেশে দলীয় নেতা-কর্মীর সমাগম ছিল লক্ষণীয়।

কাদির কল্লোল বলছেন, নয়া পল্টনে প্রায় এক কিলোমিটার জুড়ে সড়কটি মানুষে ঠাসা ছিল।

সরকারের পক্ষ থেকে এই সমাবেশে বাধা তৈরির কোনো চেষ্টা লক্ষ্য করা যায়নি। একজন সিনিয়র মন্ত্রী নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিবিসিকে বলেছেন, সরকার চায়না নির্বাচনের আগে কোনো ইস্যু তৈরি করে রাজধানীতে কোনো বিশৃঙ্খলা তৈরি হোক।

নির্বাচনের আগে সরকারের পদত্যাগের দাবি প্রসঙ্গে ঐ মন্ত্রী বলেন, সংবিধানে নির্বাচন অনুষ্ঠান নিয়ে যা বলা আছে, সবকিছু সে মতই হবে।

এদিকে ‘আওয়ামী লীগ একটা দেউলিয়া রাজনৈতিক দলে পরিণত হয়েছে’ বলে মন্তব্য করেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

এসময় মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, নির্বাচনের আগে সংসদ ভেঙে দিতে হবে। নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করতে হবে।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আগামী দিনে সুষ্ঠু নির্বাচন করতে হলে খালেদা জিয়ার সমস্ত মামলা প্রত্যাহার করতে হবে, খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে হবে, সকল রাজবন্দীকে মুক্তি দিতে হবে, সরকারকে পদত্যাগ করতে হবে, নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করতে হবে, নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে হবে, ইভিএম বাতিল করতে হবে এবং সেনাবাহিনী মোতায়েন করতে হবে।’

মির্জা ফখরুল বলেন, সরকারের মধ্যে ২৪ ঘন্টা বিএনপি ভীতি কাজ করছে। ঘুম থেকে উঠেই আতকে উঠে এই ভেবে যে, এই বুঝি খালেদা জিয়া এলো, এই বুঝি তারেক রহমান এলো।

সরকারের উদ্দেশে মির্জা ফখরুল বলেন, খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিন, তার চিকিৎসার ব্যবস্থা করুন। অন্যথায় কোনো পরিস্থিতি তৈরি হলে তার দায় আপনাদের নিতে হবে। দেশের জনগণ আপনাদের ক্ষমা করবে না। আমাদের কথা পরিষ্কার, খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতেই হবে।ফখরুল বলেন, তারেক রহমানকে নিয়ে আবার ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে। একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় তাঁকে সাজা দিতে চাইছে। রায়ের আগে আইনমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলে দিচ্ছেন, এ মামলায় তারেক রহমানের সাজা হবে। তাহলে কি আপনারা আগেই গণভবনে রায় লিখে রেখেছেন। মনে রাখবেন, কোনো ষড়যন্ত্রের রায় দেশের জণগন মেনে নিবে না।

সরকারের উদ্দেশে মির্জা ফখরুল বলেন, খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিন, তার চিকিৎসার ব্যবস্থা করুন। অন্যথায় কোনো পরিস্থিতি তৈরি হলে তার দায় আপনাদের নিতে হবে। দেশের জনগণ আপনাদের ক্ষমা করবে না। আমাদের কথা পরিষ্কার, খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতেই হবে।

ফখরুল বলেন, তারেক রহমানকে নিয়ে আবার ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে। একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় তাকে সাজা দিতে চাইছে। রায়ের আগে আইনমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলে দিচ্ছেন, এ মামলায় তারেক রহমানের সাজা হবে। তাহলে কি আপনারা আগেই গণভবনে রায় লিখে রেখেছেন। মনে রাখবেন, কোনো ষড়যন্ত্রের রায় দেশের জণগন মেনে নিবে না।

ইভিএম আওয়ামী লীগকে রক্ষা করতে পারবে না এই মন্তব্য করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, জনগনের ম্যান্ডেটে তাদের কোনো আস্থা নেই। এজন্য ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন নির্বাচনে ব্যবহারের চেষ্টা করছে।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, এখন আর বিভেদ নয়, গণতন্ত্র রক্ষায় ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। দেশ রক্ষায় বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য গড়ে তুলতে হবে। আমাদের বুকের ওপর যে দুঃশাসন চেপে বসেছে তাদেরকে পরাজিত করতে হবে।

গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানান মির্জা ফখরুল বলেন, বুকে সাহস নিয়ে ঘুরে দাঁড়াতে হবে। গণতন্ত্রের মাতাকে আর কারাগারে দেখতে চাই না।

তিনি বলেন, ‘আজকের দিনে আমাদের শপথ এই গণবিরোধী, ফ্যাসিস্ট সরকার, যারা মানুষের অধিকার হরণ করে নিয়েছে, সেই অবৈধ দানবকে, দুঃশাসনকে অপসারণ করে গণতন্ত্রের মুক্তি, খালেদা জিয়ার মুক্তি ও তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে আনতে লড়াই চালিয়ে যাওয়া।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, ‘গতকাল সারাদেশে বিএনপির প্রতিটা নেতাকর্মীর বাড়িতে পুলিশ রেট দিয়েছে। আজ সারাদেশে বিএনপির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সমাবেশে বাধা দিয়েছে। এই সরকার আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে নিয়ে নতুন ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে। মন্ত্রীরা বলা শুরু করেছে তার সাজা হবে। তাহলে কি তারা বিচার বিভাগের দায়িত্ব নিয়েছে।’

 

মির্জা ফখরুলের সভাপতিত্বে সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ, জমির উদ্দীন সরকার, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ড. আব্দুল মঈন খান, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ভাইস-চেয়ারম্যান রুহুল আলম চৌধুরী, আলতাব হোসেন চৌধুরী, জয়নুল আবদিন, বেগম সেলিমা রহমান, শামসুজ্জামান দুদু, ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, আহমেদ আযম খান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, আব্দুস সালাম, হাবিবুর রহমান হাবিব, তৈয়মুর আলম খন্দকার, ফরহাদ হালীম ডোনার, সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম-মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দীন খোকন, সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির খোকন, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানী, যুবদলের সভাপতি সাইফুল আলম নীরব, টাঙ্গাইল জেলা বিএনপির সভাপতি সামসুল আলম তোফা প্রমুখ।

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক কামরুজ্জামান রতন, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. মাসুদ আহমেদ তালুকদার, প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক এবি এম মোশাররফ হোসেন, ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল আউয়াল খান, সহ-যুব বিষয়ক সম্পাদক মীর নেওয়াজ আলী নেওয়াজ, তথ্য ও গভেষণা বিষয়ক সহ-সম্পাদক আমিরুজ্জামান খান শিমুল, নির্বাহী কমিটির সদস্য নাজিম উদ্দীন আলম, আবু নাসের মোহাম্মাদ রহমাতুল্লাহ, কামরুল ইসলাম সজল, মো. মতিন, ঢাকা জেলা বিএনপির সভাপতি ডা. দেওয়ান মো. সালাউদ্দীন, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কাজী আবুল বাশার, সহ-সভাপতি নবী উল্লাহ নবী, মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাস, সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহমেদ, সিনিয়র যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক হেলেন জেরীন খান, যুবদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি মোর্তাজুল করিম বাদরু, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবু, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদের ভূইয়া জুয়েল, সহ-সভাপতি গোলাম সরোয়ার, মুক্তিযোদ্ধা দলের সভাপতি ইশতিয়াক আজিজ উলফাত, সাধারণ সম্পাদক সাদেক খান, শ্রমিক দলের সভাপতি আনোয়ার হোসেন, ঢাকা মহানগর উত্তর যুবদলের সভাপতি এস এম জাহাঙ্গীর, দক্ষিণের সভাপতি রফিকুল আলম মজনু প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।


এ সম্পর্কিত আরো খবর

রাজনীতি এর অন্যান্য খবরসমূহ
পূর্বের সংবাদ