হেফাজতের অবরোধে ভোর থেকেই রাজাধানীর সঙ্গে দেশের সড়ক যোগাযোগ বন্ধ

রোববার ভোরে ফজরের নামাজ সেরেই হেফাজত ইসলামের কর্মীরা রাজধানীতে ঢোকার প্রধান পথগুলোয়  অবস্থান নিয়ে অবরোধ সৃষ্টি করায় যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। ক্রমেই ঢাকা যেন এক অবরুদ্ধ নগরীতে পরিনিত হতে যাচ্ছে। দিন ভাড়া সঙ্গে সঙ্গে বৃষ্টি উপেক্ষ করে হেফাজতের কর্মীরা রাস্তায় বেরীয়ে আসতে শুরু করেছে। অর তাদের ঠেকাতে বিভিন্ন স্থান ব্যারিকেড দিয়েছে পুলিশও। ১৩ দফা দাবির সপক্ষে হেফাজত কর্মীরা ট্রাকে মঞ্চ বানিয়ে মাইকে বিভিন্ন স্লোগান দিচ্ছে। প্রবল বৃষ্টিতেও তারা পথ ছেড়ে যায়নি। যাত্রাবাড়ি ও ডেমরায় অবরোধের ফলে ঢাকার সঙ্গে চট্টগ্রাম ও সিলেটের যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে।

যাত্রাবাড়ির কাজলা এলাকায় ভোর থেকেই সড়ক অবরোধ করে রেখেছে হেফাজতকর্মীরা। মোটরসাইকেলের মতো হালকা যানও চলতে দিচ্ছে না তারা।

সেখানে সড়কে পুলিশও ব্যারিকেড দিয়েছে। এর একপাশে পুলিশ ও র্যা ব সদস্যরা এবং অন্যপাশে হেফাজত কর্মীরা রয়েছে। পুলিশ হেফাজতকর্মীদের ব্যারিকেড অতিক্রম করতে মাইকিং করছে। সেখানে ট্রাকে মঞ্চ বানিয়ে সেখান থেকে মাইকে ১৩ দফা দাবি আদায়ে বিভিন্ন স্লোগান দিচ্ছে হেফাজতকর্মীরা।

ডেমরা মোড়েও রয়েছে লাঠি হাতে হেফাজতকর্মীদের অবরোধ। সেখানে দেয়াল থেকে সিনেমার পোস্টার ছিড়ে ফেলছেন তারা। হেফাজতের ১৩ দফায় চলচ্চিত্রে ‘অশ্লীলতা’ বন্ধের দাবিও রয়েছে।

ফজরের নামাজ শেষেই উত্তরার নর্থ টাওয়ারের সামনে থেকে টঙ্গী ব্রিজ পর্যন্ত বাংলাদেশের পতাকা হাতে অবস্থান নেয় হেফাজতের কর্মীরা। ওই সড়ক দিয়ে যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে।

তবে আনুষ্ঠানিকভাবে সোয়া ছয়টার দিকে একটি পিকআপ ভ্যানের উপর থেকে কুরআন তেলওয়াতের মাধ্যমে হেফাজতের কর্মসূচি শুরুর ঘোষণা করা হয়।

ওই এলাকায় পুলিশ ও র্যা ব সদস্য টহল দিলেও হেফাজতকে তারা বাধা দিচ্ছে না।
ফজরের নামাজের পর পোস্তাগোলা এক নম্বর সেতুতে জড়ো হয় হেফাজত কর্মীরা। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে তাদের সংখ্যা কয়েক হাজারে পৌঁছায়। এ সেতু দিয়ে নারায়ণগঞ্জ ও মাওয়া ফেরিঘাট পর্যন্ত যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে।

আশপাশে বিপুল সংখক পুলিশ মোতায়েন আছে।

বাবুবাজার ব্রিজের ওপর থেকে প্রতিবেদক কামাল তালুকদার বলছেন, ৫০ জনের মতো হেফাজত কর্মীর একটি দল নামাজ শেষেই সেখানে অবস্থান নেয়। এক ঘণ্টা পরই এই সংখ্যা হাজার ছাড়িয়ে যায়। সেতু ও এর দুই পাশে অবস্থান নিয়ে যানবাহন ফিরিয়ে দিচ্ছেন তারা।

 

নয়াবাজারে পুলিশ রাস্তায় ব্যারিকেড দিয়ে হেফাজতকর্মীদের ঢাকার দিকে আসতে দিচ্ছে না। পুলিশের সাজোয়া যান ও পানি ছিটানোর গাড়ি আশপাশেই আছে।আমিন বাজারে পুলিশ ব্যাপক তল্লাশি চালাচ্ছে। হেফাজতের কর্মী সন্দেহে অনেককেই গাড়ি থেকে নামিয়ে দিচ্ছে তারা। সেখানে হেফাজতেরকর্মীরা এখনও জড়ো হতে পারেনি।

গাজীপুর প্রতিনিধি জানান, গাজীপুরে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক দিয়ে যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। সেখানে লাঠি ও পতাকা নিয়ে হেফাজতের কর্মীরা অবস্থান নিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী শুক্রবার সংবাদ সম্মেলনে হেফাজতের ১৩ দফা দাবি পড়ে শুনিয়ে বলেন, অধিকাংশ দাবি পূরণ করা হয়েছে এবং বাকিগুলো হচ্ছে। তিনি সংগঠনটিকে তাদের কর্মসূচি প্রত্যাহারের আহ্বান জানিয়েছিলেন।

কিন্তু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্যেকে ‘অন্তঃসারশূন্য’ অভিহিত করে কর্মসূচির একদিন আগে শনিবার এক সংবাদ সম্মেলনে হেফাজতের আমির আহমদ শফী অবরোধ চালিয়ে যাবার ঘোষণা দেন।

হেফাজত ইসলামের নেতারা বরাবরই তাদের কর্মসূচিকে ধর্মীয় বললেও এই গোষ্ঠী রাজনৈতিক অঙ্গনে গুরুতর আলোচনার বিষয় হয়ে উঠেছে। সরকারি দলের কয়েকজন নেতা হেফাজতের কঠোর সমালোচনা করলেও শনিবারের সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দৃশ্যত তাদের ‘অনুভূতি’র প্রতি সহমর্মিতা দেখিয়েছেন।

936911_460462454041724_395695629_n

প্রধান বিরোধী দল বিএনপি, হেফাজতের সাম্প্রতিক কর্মসূচিগুলিতে সংহতি প্রকাশ করেছে।

মাদ্রাসার ছাত্র-শিক্ষকদের গোষ্ঠীটির দাবি-দাওয়াকে নারী অগ্রগতির পথে প্রাচীর হিসেবে দেখছে দেশের প্রধান প্রধান নারী সংগঠনগুলো।

হেফাজতের ‘নারী-পুরুষের অবাধ প্রকাশ্য বিচরণ’ বন্ধের দাবির বিরুদ্ধে ২৭ এপ্রিল নারী সমাবেশের ডাক দিয়েছিল প্রধান প্রধান নারী সংগঠনগুলো। সাভার বিপর্যয়ের কারণে সেটি পিছিয়ে ৯ মে করা হয়েছে।

বামপন্থী দলগুলো বলছে, এইসব দাবি-দাওয়া দেশকে পেছনের দিকে নিয়ে যাবে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।