এক ফালি বাকা চাঁদের অপেক্ষায় পুরোদেশ - খবর তরঙ্গ
শিরোনাম :

এক ফালি বাকা চাঁদের অপেক্ষায় পুরোদেশ



নিউজ ডেস্ক, (খবর তরঙ্গ ডটকম)

পুরোদেশ যখন মুসলামানদের বৃহত্তম ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল ফিতরের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে। ঈদ আসার আগেই মানুষ তাদের কেনাকাটা সেরে নিয়েছেন, কেউ কেউ এখনো ঈদ কেনাকাটায় ব্যস্ত।

 

এবার অপেক্ষা ঈদের এক ফালি বাকা চাঁদের। এক মাস সিয়াম সাধনার পর খুশির ঈদের অপেক্ষায় আজ শেষ বিকেলে মানুষের চোখ থাকবে পশ্চিম আকাশে। আজ চাঁদ দেখা গেলেই আগামীকাল বুধবার পবিত্র ঈদুল ফিতর।

 

পবিত্র শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখার সংবাদ পর্যালোচনা এবং পবিত্র ঈদুল ফিতরের তারিখ নির্ধারণে আজ সন্ধ্যায় ইসলামিক ফাউন্ডেশন বায়তুল মোকাররমে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির এক সভা অনুষ্ঠিত হবে।

 

চাঁদ দেখা গেলেই প্রাণে প্রাণে বেজে উঠবে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের অমর গাথা- ‘রমজানের ওই রোজার শেষে এলো খুশির ঈদ…। ঈদের প্রস্তুতি শুরু হবে পাড়া-মহল্লায়, সারা দেশে। ছোট শিশুরা ঈদের আনন্দে মেতে উঠবে।

 

ঘরে ঘরে শুরু হবে সাধ্যমতো উপাদেয় খাবারের আয়োজনের তোড়জোড়। এই আয়োজনে থাকবে সেমাই, ফিরনি, পায়েস, পোলাও আর মাংসের নানা পদ। সৌদি আরবসহ বিশ্বের বেশ কয়েকটি মুসলিম দেশে বুধবার পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপন করা হবে। সাধারণত মধ্যপ্রাচ্যের পরদিন বাংলাদেশে ঈদুল ফিতর পালিত হলেও সেখানে রমজান মাস ৩০ দিনে হলে বাংলাদেশেও একই দিন ঈদুল ফিতর হতে পারে।

 

ঈদ মুসলমানদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব। রমজান মাসের টানা এক মাস কঠোর সিয়াম সাধনা ও ইবাদত-বন্দেগির পর বিশ্বের মুসলমান সম্প্রদায় রোজা ভঙ্গ করে আল্লাহর প্রতি শুকরিয়াস্বরূপ যে আনন্দ-উৎসব উদযাপন করেন, সেটিই ঈদুল ফিতর।

 

ঈদ ধনী-গরিব সব মানুষের মহামিলনের বার্তা নিয়ে আসে। ঈদের দিন ধনী-গরিব, মালিক-শ্রমিক নির্বিশেষে সব মুসলমান এক কাতারে ঈদের নামাজ আদায় এবং একে অপরের সঙ্গে কোলাকুলি করেন। এতে ধ্বনিত হয় সাম্যের জয়গান।

 

এদিক থেকে ঈদ কেবল আনন্দের বার্তাই নিয়ে আসে না, ইসলামের সাম্য আর ভ্রাতৃত্বের আদর্শও উদ্ভাসিত হয় এই উৎসবে।

 

এদিকে জীবিকার তাগিদে আসা শহরের মানুষ ঈদ করতে ছুটছেন গ্রামের স্বজনদের কাছে। দীর্ঘ দিন ছুটি থাকায় এবারে মানুষের ঈদযাত্রার দুর্ভোগ খানিকটা কম। বাস-লঞ্চ-রেল স্টেশনগুলোতে ভিড় স্বাভাবিক রয়েছে।

 

ঈদে প্রতিবারের মতোই হাসপাতাল, এতিমখানা, শিশুসদন, ছোটমণি নিবাস, বৃদ্ধাশ্রম, ভবঘুরে আশ্রয় কেন্দ্রে থাকবে বিশেষ খাবারের ব্যবস্থা।

 

ঈদ উপলক্ষ্যে রাজধানী ঢাকাও সেজেছে বর্ণিল সাজে। নগরীর সড়ক দ্বীপগুলো ছাড়াও বিভিন্ন রাস্তায় বাংলা ও আরবিতে লেখা ঈদ মোবারক ও কালেমার ব্যানার। সঙ্গে রয়েছে লাল-সবুজে বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা।

 

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ভাষায়, আজ পড়ব ঈদের নামাজ রে ভাই, সেই সে ঈদগাহে..। ঈদের আসল আয়োজনই হলো ঈদের নামাজ। নতুন পোশাক পরে বাবার হাত ধরে ছোট্ট শিশুটিও ছুটবে ঈদগাহে। এ জন্য দেশের প্রতিটি ঈদগাহ এর মধ্যেই প্রস্তুত। জাতীয় ঈদগাহও প্রস্তুত নগরবাসীর জন্য।

 

এদিকে, সারাদেশে মৌসুমী বায়ু সক্রিয় থাকায় ঈদের দিন রাজধানীতে হালকা এবং দক্ষিণাঞ্চলে হালকা বৃষ্টিপাত হতে পারে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

 

পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদ, জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত আমির মকবুল আহমাদ পৃথক বাণীতে দেশবাসীকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন।


এ সম্পর্কিত আরো খবর