সিএনজি স্টেশন মালিকদের সঙ্গে প্রশাসনের বৈঠক:ধর্মঘট অব্যাহত

ধর্মঘট প্রত্যাহার নিয়ে সিলেটে সিএনজি স্টেশন মালিকদের সঙ্গে প্রশাসনের বৈঠক হয়েছে। তবে কেন্দ্রীয়ভাবে ধর্মঘটের ডাক দেয়ায় এখনো ধর্মঘট অব্যাহত রয়েছে।  পেট্রোল পাম্প ও সিএনজি ফিলিং স্টেশনে ধর্মঘট নিয়ে উদ্ভূত পরিস্থিতি বৃহস্পতিবার রাতে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এক জরুরি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

জেলা প্রশাসক শহীদুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন, সাবেক মেয়র ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বদর উদ্দিন আহমদ কামরান, জেলা পরিষদের প্রশাসক ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুজ জহির চৌধুরী সুফিয়ান, সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী এমপি, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আশফাক আহমদ, সিলেট বিভাগ পেট্রোল পাম্প ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মোস্তফা কামাল ও সাধারণ সম্পাদক জুবায়ের আহমদ চৌধুরীসহ সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তারা।

বৈঠকে জেলা প্রশাসক ও আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ বৃহস্পতিবার রাত ১২টা থেকে শুক্রবার সকাল ১১টা পর্যন্ত সিলেটে ধর্মঘট প্রত্যাহরের অনুরোধ জানান।

জবাবে সিএনজি মালিক সমিতির নেতারা বলেন, আজ সকাল ১১টায় জ্বালানি সচিবের সাথে তাদের কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠক অনষ্ঠিত হবে। কেন্দ্র থেকে সমাধান না হওয়া পর্যন্ত সিলেট থেকে ধর্মঘট প্রত্যাহার করা যাবে না।

অনেক আলাপ আলোচনার পর সিএনজি মালিক সমিতির পক্ষে বলা হয় শুধু সিলেটে বৃহস্পতিবার রাত ১২টা থেকে শুক্রবার ভোর ৬টা পর্যন্ত সকল পাম্প ও সিএনজি ফিলিং স্টেশন খুলে দেয়া হবে। এই সময়ের মধ্যে সকল যানবাহন গ্যাস যাতে নিতে পারে-এ ব্যাপারে সর্বাত্মক সহযোগিতা করবে মালিক সমিতি।

সিলেটের জেলা প্রশাসক শহীদুল ইসলাম জানান, ‘সিলেটের ব্যবসায়ীদের সাথে তাদের আপাতত সমঝোতা হয়েছে। তবে, তাদের কেন্দ্রীয় কর্মসূচি থাকায় শুক্রবার এ বিষয়ে চূড়ান্ত ফায়সালা হবে।’

মোবাইল কোর্টের কোনো প্রতিষ্ঠানের খাতাপত্র দেখার এখতিয়ার রয়েছে কিনা এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে জেলা প্রশাসক বলেন, ‘এটা পেট্রোবাংলার আইনের বিষয়। কাজেই এ বিষয়ে তিনি অবহিত নন’।

তিনি আরো বলেন, ‘ম্যাজিস্ট্রেট হয়তো পাঁচ বছরের হিসাব-নিকাশের জন্য পাঁচ লাখ টাকা জরিমানা করেছিলেন’।

তবে, ব্যবসায়ীরা সংশ্লিষ্ট বিষয়ে পারদর্শী লোকদের দিয়ে এ ধরনের অভিযান পরিচালনার তাগিদ দিয়েছেন বলে তিনি জানান।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।