ভাইয়ের হাতে ভাই খুন, এটাই আওয়ামীলীগের প্রধান গুণ-আবদুল্লাহ জিয়া

বাংলাদেশ ন্যাশনাল এ্যালাযেন্স-বিএনএ ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ জিয়া বলেছেন, ভাইয়ের হাতে ভাই খুন, এটাই আওয়ামীলীগের প্রধান গুণ। ভাইয়ের হাতে যদি খুন হতে চান তাহলে আওয়ামীলীগ করতে হবে। কেননা এটাই তাদের প্রধান রাজনৈতিক শৈলী। ভায়ের হাতে ভাই খুন না হবার অনেক দল বাংলাদেশে থাকলেও কেন যে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে রাজনীতি করতে গিয়ে তারা একে অপরের হাতে খুন হবার জন্য এ দল করে তা আমার বুঝে আসে না। গাগল ও বধিরও তো নিজেকে বাঁচাতে এ রকম মরন ফাঁদে পা দেবার দল করবে না। তাহলে যারা এ দলের সাথে আছে তাদের বুঝকে কোন ক্যাটাগরিতে ফেলব তা আমি খুজে পাচ্ছি না।ব্যক্তি সম্পর্কের মাধ্যমে কিভাবে একটি দল গড়ে ওঠে সে বিষয়ের আলোচনায় এক বিবৃতিতে বিশিষ্ট রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও কলামিষ্ট আবদুল্লাহ জিয়া আরো বলেন, আমরা জানি মানুষ কোন দল করতে গেলে তার সাথে আগে ভাতৃ সর্ম্পক স্থাপন করে। এরপর এক ভাই অপর ভাইকে একটি পথ ও মতে দাওয়াত দেয়। আর অপর ভাই সে পথ ও মতের দাওয়াত গ্রহণ করে তার সে ভাইয়ের দেখানো পথে পথ চলে। পথ চলার বিষয়ে সে একটি চিন্তা করে যেন কোন বর্হিশত্রু দ্বারা আক্রান্ত হলে অথবা অন্য দলের লোক দ্বারা আক্রান্ত হলে সে তার অপর ভায়ের প্রতি আস্থা আনবে। এবং অপর ভাইও তাকে নিঃশ্বংকচিত্তে সাহায্য করবে। কখনও একজন আরেকজনের ক্ষেত্রে বিরুপ হলেও উভয়ে ছাড় দিয়ে সন্তুষ্ট হবে এবং পরস্পর মিলে যাবে। এটাই একটি সর্ম্পক গড়ার নিয়ম। আর এ ধরণের সর্ম্পকের উপর ভীত করেই একটি দল বা গোষ্ঠি গড়ে ওঠে।

কিন্তু আওয়ামীলীগ যারা করে তারা একে অপরের মাঝে কি সর্ম্পক স্থাপন করে যে, কোন স্বার্থ এলেই একজন আরেকজনকে খুন করে, গুম করে, পুড়িয়ে মারে? আর পুড়িয়ে মারার সংস্কৃতি দেখেও কেন তারা এই একই কাঠামোর মধ্যে থাকে? তাদের রাজনৈতিক কাঠামোতো একটি বোমার ন্যায়। যা সবার হাতে আছে। যেই একজনের হাত থেকে মাটিতে পড়বে সেই সবাই মারা যাবে। সেক্ষেত্রে তাদের রাজনৈতিক স্ট্রাকচারকে বোমা স্ট্রাকচার ছাড়া আর কিছুই দেয়া সম্ভব হচ্ছে না। তাই এ বোমা সদৃশ দল ছেড়ে নিজেদেরকে বাঁচাতে ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের একটি সুন্দর প্লাটফর্মের রাজনৈতিক দলে যোগদানের জন্য আহবান জানান বিএনএ’র এই শীর্ষনেতা। সেক্ষেত্রে বিএনএও হতে পারে তাদের পছন্দের প্লাটর্ফম বলেও মনে করেন তিনি।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।