একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধে ট্রাইব্যুনালে মীর কাসেম, রায়ের অপেক্ষা

একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় আটক জামায়াতের কর্মপরিষদ সদস্য ও দিগন্ত মিডিয়া করপোরেশনের চেয়ারম্যান মীর কাসেম আলীর রায় আজ রবিবার ঘোষণা করা হবে। রায় ঘিরে সকাল সোয়া নয়টার দিকে কড়া নিরাপত্তায় তাকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে ট্রাইব্যুনালে আনা হয়েছে। এখন তিনি ট্রাইব্যুনালের হাজতখানায় রয়েছেন।

 

গত বৃহস্পতিবার বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বে গঠিত তিন সদস্যের দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল রায় ঘোষণার জন্য আজকের এ দিন ধার্য্য করেন। এর আগে গত বুধবার জামায়াতের আমির মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীর মামলার রায় ঘোষণা করেন প্রথম ট্রাইব্যুনাল। তাকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হলে বৃহস্পতিবার, রবি ও সোমবার হরতালের ডাক দেয় জামায়াত।

 

সেই হরতালের মধ্যেই আজ মীর কাসেম আলীর রায় ঘোষণা করা হবে। এখনো ট্রাইব্যুনালের বিচারপতির এবং রাষ্ট্রপক্ষ প্রসিকিউশন টিমের সদস্যরা আসেননি। ধারণা করা হচ্ছে, বেলা ১১টা থেকে রায় ঘোষণা শুরু হবে।

 

রায় ঘিরে সপ্রিমকোর্ট ও এর আশপাশের এলাকায় নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। সকাল থেকে তল্লাশি করে সবাইকে আদালতে প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে। ট্রাইব্যুনাল এলাকায় যান চলাচলেও নিয়ন্ত্রণ আরোপ করা হয়েছে। এর আগে গত ৪ মে আসামিপক্ষের যুক্তি উপস্থাপন শেষে মীর কাসেম আলীর রায়ের জন্য মামলাটি অপেক্ষমাণ (সিএভি) রাখেন ট্রাইব্যুনাল।

 

যুক্তি উপস্থাপন শেষে প্রসিকিউশন দাবি করেছেন, তারা মীর কাসেম আলীর অপরাধ প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছেন। এজন্য তার সর্বোচ্চ শাস্তি হবে। আসামিপক্ষের দাবি, মীর কাসেম আলীর বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। প্রসিকিউশন তাদের অভিযোগ প্রমাণে ব্যর্থ হয়েছে। তারা আশা করছেন, তিনি খালাস পাবেন।

 

গত বছরের ১৮ নভেম্বর মীর কাসেম আলীর বিরুদ্ধে প্রসিকিউশনের ওপেনিং স্টেটমেন্ট উপস্থাপনের মধ্যদিয়ে বিচারকাজ শুরু হয়। এরপর ১১ ডিসেম্বর তার বিরুদ্ধে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়।

 

২০১৩ সালের ১৬ মে প্রসিকিউটর জেয়াদ আল মালুমসহ প্রসিকিউশন টিম ১৪টি অভিযোগে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ ট্রাইব্যুনালের রেজিস্ট্রার বরাবর দাখিল করেন। গত ৫ সেপ্টেম্বর মীর কাসেম আলীকে ১৪টি ঘটনায় অভিযুক্ত করে অভিযোগ গঠন করেন ট্রাইব্যুনাল। মীর কাসেম আলীর বিরুদ্ধে আনিত ১৪টি অভিযোগের মধ্যে ১১ ও ১২ নাম্বার অভিযোগ ছাড়া বাকি সব অভিযোগই অপহরণ করে নির্যাতনের বর্ণনা রয়েছে।

 

২০১২ সালের ১৭ জুন মীর কাসেম আলীর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করলে ওইদিন বিকেলে মতিঝিলে দৈনিক নয়া দিগন্ত পত্রিকার কার্যালয় (দিগন্ত মিডিয়া করপোরেশন) থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।