বাংলাদেশ সরকার ক্রমেই স্বৈরশাসনের পথে এগুচ্ছে: এইচআরডব্লিউ

বাংলাদেশ সরকার ক্রমেই স্বৈরশাসনের পথে এগুচ্ছে বলে অভিযোগ করেছে নিউ ইয়র্কভিত্তিক আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন হিউম্যান রাইটস ওয়াচ (এইচআরডব্লিউ)। জেনেভায় জাতিসংঘ মানবাধিকার কাউন্সিলের এক শুনানিতে একটি বিবৃতিতে এ অভিযোগ করেছে সংস্থাটি।

 

হিউম্যান রাইটস ওয়াচের ওয়েবসাইটে বিবৃতিটি প্রকাশে বলা হয়:

জেনেভায় এইচআরডব্লিউ’র উপ-পরিচালক ফিলিপ্পি ড্যাম জাতিসংঘ মানবাধিকার কাউন্সিলের শুনানিতে ওই বিবৃতিতে বলেছেন, ২০১৪ সালের জানুয়ারি থেকে বাংলাদেশ অধিকতর স্বৈরশাসনের পথে এগুচ্ছে। গুম ও বিরোধী দলের সদস্যদের বিধিবহির্ভূত গ্রেপ্তার করা, সরকারের সমালোচক গণমাধ্যম বন্ধ করা, এবং সম্পাদক, ব্লগার, সাংবাদিক ও সুশীল সমাজের সদস্যদের গ্রেপ্তার ও অভিযুক্ত করা সাধারণ ঘটনায় পরিণত হয়েছে।

 

বিবৃতিতে বলা হয়, হাজার হাজার বিরোধী দলীয় সদস্য ও বিক্ষোভকারীদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে এবং অজ্ঞাত সংখ্যক মানুষ জেল-হাজতে রয়েছেন।

 

উল্লেখ্য, প্রভাবশালী ব্রিটিশ দৈনিক গার্ডিয়ানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাক্ষাৎকারের ভিত্তিতে সোমবার প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনেও  বাংলাদেশে ক্রমবর্ধমান স্বৈরশাসনসহ উপরোক্ত অভিযোগ তোলা হয়েছে। তবে প্রধানমন্ত্রী এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

 

এইচআরডব্লিউ’র বিবৃতিতে বলা হয়েছে, বিরোধী দলীয় বহু নেতা দেশ ছাড়া বা আত্মগোপনের পথ বেছে নিয়েছেন। নাস্তিকতার অনুভূতি প্রকাশকারী ব্লগারদের সুরক্ষা দিতে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে ব্যর্থ হয়েছে কর্তৃপক্ষ। এর ফলে শুধু ২০১৫ সালেই ৪ ব্লগার নির্দয়ভাবে খুন হয়েছেন।

 

রানা প্লাজা ধসের পর শ্রমিক ইউনিয়ন গঠন সহজীকরণের জন্য আইন পরিবর্তন করা হয়েছিল। কিন্তু, গবেষণায় দেখা যাচ্ছে যারা তৈরি পোশাক খাতে শ্রমিক ইউনিয়ন গঠন করতে আগ্রহী বা যারা ইউনিয়নে যোগ দিচ্ছেন, তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা অব্যাহত রয়েছে।

 

নিরাপত্তা বাহিনীসমূহের সমালোচনা করে ওই বিবৃতিতে বলা হয়, একের পর এক সরকারের সময় নিরাপত্তা বাহিনীসমূহের বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড ও বারংবার অন্যান্য আইন লঙ্ঘনের ঘটনাগুলোর নিরপেক্ষ রেকর্ড থাকলেও, তারা প্রায় পূর্ণ দায়মুক্তি ভোগ করে চলেছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।