লক্ষ্মীপুরে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ মিছিল - খবর তরঙ্গ
শিরোনাম :
ছাত্রীদের যৌন নিপীড়ন-উত্ত্যক্ত করার প্রতিবাদ ও অধ্যক্ষের পদত্যাগের দাবীতে

লক্ষ্মীপুরে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ মিছিল



আতোয়ার রহমান মনির, লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি, (খবর তরঙ্গ ডটকম)

লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলা খিলবাইছা রাহমানিয়া ফাজিল (ডিগ্রি) মাদ্রাসার অধ্যক্ষ নুর হাসানের বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদের উত্ত্যক্ত ও যৌন নিপীড়নসহ নানান ভাবে হয়রানী করার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনার প্রতিবাদ, শাস্তি ও অধ্যক্ষের পদত্যাগের দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল করছে শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও শিক্ষকরা। বুধবার সকাল ১০টা থেকে ১১টা পর্যন্ত ক্লাস বর্জন করে মাদ্রাসার সামনের সড়কে ঘন্টাব্যাপী কর্মসুচি পালন করে তারা। পরে তারা অধ্যক্ষের অপসারণ ও বিচার দাবী করে (রামগঞ্জ-লক্ষ্মীপুর ) সড়কে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে শিক্ষার্থীরা।

 

শিক্ষক,শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা অভিযোগ করে বলেন, গত কয়েকদিন ধরে মাদ্রাসার ৯ম ও আলীমের কয়েক ছাত্রীকে অধ্যক্ষ নুর হাসান তার রুমে ডেকে নিয়ে বিভিন্নভাবে যৌন নিপীড়ন করে আসছিল। এসব ঘটনার প্রতিবাদ করলে শিক্ষার্থীদের মাদ্রাসা থেকে বহিস্কার করার হুমকি দেয় অধ্যক্ষ নুর হাসান। সম্প্রতি ৯ম ও আলীমের তিন শিক্ষার্থীকে বিভিন্ন সময়ে অধ্যক্ষ তার রুমে ডেকে নিয়ে যৌন নিপীড়ন ও উত্ত্যক্ত করা হয়। এ বিষয়ে শ্রেনী শিক্ষক ও অভিভাবকদের জানায় ওই শিক্ষার্থীরা।পরে অভিভাবক ও শিক্ষকরা অধ্যক্ষের কাছে বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি আরো ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন বলে অভিযোগ করেন। তাই তারা বাধ্য হয়ে আন্দোলনে নামছে। ওই ঘটনার সাথে জড়িত অধ্যক্ষ নুর হাসানের বিচার ও পদত্যাগের দাবী জানায় তারা। অন্যথায় আরো কঠোর কর্মসুচির হুশিয়ারী দেন শিক্ষার্থীরা। মাদ্রাসার ইংরেজী শিক্ষক নিলুফা আফরোজ বলেন গত রোববার নবমশ্রেনীর এক ছাত্রীকে তার রুমে নিয়ে তার শরীরের বিভিন্ন র্স্পশকাতর স্থানে হাত দেয় বলে ওই ছাত্রী অভিযোগ করে। তিনি জানান এ ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর বিভিন্ন ছাত্রীরা ও অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে যৌন র্নিযাতনের অভিযোগ করে।
মাদ্রাসার অধ্যক্ষ নুর হাসান তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযো ষড়যন্ত্রমুলক, তিনি মাদ্রসার বিভিন্ন নিয়মনীতি বিষয়ে কঠোর হওয়ায় শিক্ষকরা তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে। ছাত্রীদের বিভিন্ন ছেলেদের সাথে প্রেম করে এ বিষয়ে তিনি তাদেরকে বুঝাতে গেলে ছাত্রীরা তার বিরুদ্ধে এ অভিযোগ করছে বলে তিনি জানান।
সদর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকতা আবু তালেব জানান বিষয়টি শুনে মাদ্রাসা পরিদর্শনে যাই। এসময় শিক্ষক,শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সাথে কথা বলেছি। ভিকটিম শিক্ষার্থীরা, অধ্যক্ষের বিচার চেয়ে একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। বিষয়টি শুনার পর প্রাথমিকভাবে ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে বলে জানান তিনি। এ বিষয়ে প্রায়োজনী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

লক্ষ্মীপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. লোকমান হোসেন জানান,এ বিষয়ে কোন অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।


Uncategorized এর অন্যান্য খবরসমূহ
পূর্বের সংবাদ