আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদ ছিলেন মুসলমান কবি-সাহিত্যিকদের পথিকৃৎ - খবর তরঙ্গ
শিরোনাম :
কক্সবাজার সাহিত্য একাডেমীর আলোচনা সভায় বক্তাগণ বলেন

আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদ ছিলেন মুসলমান কবি-সাহিত্যিকদের পথিকৃৎ



(খবর তরঙ্গ ডটকম)

মেধা, শ্রম, ঐকান্তিকতা, অনুসন্ধান ও আবিষ্কারে যিনি মধ্যযুগের বাংলা সাহিত্যের অজানা অথচ অপরিহার্য ইতিহাস পুনরুজ্জীবিত করেছিলেন, তিনি মনীষী মুন্সি আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদ। বাঙালি মুসলিম সমাজের আত্মচেতনা বৃদ্ধি, মাতৃভাষার প্রতি অনুরাগসৃজন, দেশের প্রতি ভালোবাসা বৃদ্ধিতে, আত্মপ্রত্যয় ও আত্মমর্যাদা জাগানোর ক্ষেত্রে তাঁর ভূমিকা অনন্য।

কক্সবাজার সাহিত্য একাডেমীর ৪৫৮তম পাক্ষিক সাহিত্য সভায় বক্তাগণ এসব কথা বলেন। একাডেমীর সহ-সভাপতি ও কক্সবাজার সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ছড়াকার মো. নাছির উদ্দিনের সভাপতিত্বে কক্সবাজার সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সভা কক্ষে অনুষ্ঠিত আলোচনা অনুষ্ঠানে সাহিত্যবিশারদের জীবনালেখ্য নিয়ে লিখিত প্রবন্ধ পাঠ করেন একাডেমীর নির্বাহী সদস্য ও কক্সবাজার সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক গল্পকার সোহেল ইকবাল।


লিখিত প্রবন্ধের উপর আলোচনা করতে গিয়ে বক্তাগণ আরো বলেন, আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদ প্রথম জীবনেই সাহিত্যবিষয়ক নিবন্ধ রচনা শুরু করেন। তাঁর সাহিত্যকর্ম তৎকালীন বিদগ্ধ সমাজের মনোযোগ আকর্ষণ করে। মধ্যযুগে বাংলা সাহিত্যে মুসলমানদের অবদান ছিল তাঁর বিশেষ আগ্রহের বিষয়। সারাজীবন তিনি প্রাচীন বাংলা পাÐুলিপি (পুঁথি) সংগ্রহ করেন।


বক্তাগণ বলেন, সাহিত্যবিশারদ এগারোটি প্রাচীন বাংলা গ্রন্থ সম্পাদনা ও প্রকাশ করেন। ইসলামাবাদ শিরোনামে তিনি চট্টগ্রামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি সম্পর্কে একটি গ্রন্থও রচনা করেন। ডক্টর মুহম্মদ এনামুল হক এর সঙ্গে যৌথভাবে তিনি আরাকান রাজসভায় বাঙ্গালা সাহিত্য শীর্ষক আরেকটি গ্রন্থ রচনা করেন। এ সবই পাÐিত্যপূর্ণ রচনা। তাঁর সংগৃহীত মুসলমান কবিদের রচিত পাÐুলিপিগুলি থেকে জানা যায় যে, সেকালের মুসলিম মনীষীরা বাংলা সাহিত্যের বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছিলেন। দৌলত কাজী, আলাওল, সৈয়দ সুলতান, মুহম্মদ খান প্রমুখ শ্রেষ্ঠ বাঙালি কবিদের অন্যতম বলে গণ্য। যাঁদের নাম ও রচনা সম্পর্কে আগে কিছুই জানা যায়নি এমন প্রায় একশ জন মুসলমান কবিকে তিনি সাধারণ্যে পরিচিত করেন। এ থেকে প্রমাণিত হয়েছে যে, বাংলা মুসলমানদেরও ভাষা ছিল।


একাডেমীর সাধারণ সম্পাদক কবি রুহুল কাদের বাবুলের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সাহিত্য সভায় প্রধান আলোচক ছিলেন একাডেমীর স্থায়ী পরিষদের চেয়ারম্যান সুলতান আহমেদ। অন্যদের মধ্যে আলোচনা অংশগ্রহণ করেন মূল্যায়ন সম্পাদক-কবি অমিত চৌধুরী, একাডেমীর স্থায়ী পরিষদের সদস্য গবেষক নূরুল আজিজ চৌধুরী, একাডেমীর অর্থ সম্পাদক কবি মোহাম্মদ আমিরুদ্দীন, নির্বাহী সদস্য ছড়াকার-কণ্ঠশিল্পী নুরুল আলম হেলালী ও সদস্য কবি গুলশান আরা বিউটি প্রমুখ।

সভায় প্রধান আলোচক ছিলেন একাডেমীর স্থায়ী পরিষদের চেয়ারম্যান সুলতান আহমেদ। অন্যদের মধ্যে আলোচনা অংশগ্রহণ করেন মূল্যায়ন সম্পাদক-কবি অমিত চৌধুরী, একাডেমীর স্থায়ী পরিষদের সদস্য গবেষক নূরুল আজিজ চৌধুরী, একাডেমীর অর্থ সম্পাদক কবি মোহাম্মদ আমিরুদ্দীন, নির্বাহী সদস্য ছড়াকার-কণ্ঠশিল্পী নুরুল আলম হেলালী ও সদস্য কবি গুলশান আরা বিউটি প্রমুখ।


পরে স্বরচিত কবিতা পাঠ করেন অমিত চৌধুরী, রুহুল কাদের বাবুল, মো. নাছির উদ্দিন, মোহাম্মদ আমিরুদ্দীন, সদস্য উত্তর নুনিয়াছড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কবি জোসনা ইকবাল, কক্সবাজার মডেল হাইস্কুলের সিনিয়র শিক্ষক-কবি কানিজ ফাতেমা প্রমুখ।


Uncategorized এর অন্যান্য খবরসমূহ