টেকনাফের হোয়াইক্যং হাইওয়ে পুলিশের বেপরোয়া চাঁদাবাজি: অতিষ্ঠ সেন্টমার্টিনগামী পর্যটকরাও

টেকনাফ উপজেলার হোয়াইক্যং হাইওয়ে পুলিশে কর্মরত এটিএসআই মোশারফ হোসেনের বেপরোয়া চাঁদাবাজি ও ঘুষ বাণিজ্যে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে স্থানীয় জনজীবন। একই সাথে সড়কের পাশে আরএফএল’র হাতওয়ালা চেয়ারম্যান এর চেয়ার বসিয়ে তার দিবারাত্রি বিভিন্ন পরিবহনে অহেতুক তল্লাশী ও চাঁদাবাজির কারণে সীমান্তের সেন্টমার্টিনগামী পর্যটকরাও সীমাহীন ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। শুধু তাই নয়, হাইওয়ে পুলিশের উক্ত এটিএসআই মোশারফ হরদম নিজেকে কুমিল্লা হাইওয়ে পুলিশের এস.পি ও পূর্বাঞ্চলের ডিআইজির নিকটাত্মীয় পরিচয় দিয়েও বেপরোয়া চাঁদাবাজিতে লিপ্ত হয়ে পড়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

 

স্থানীয় কয়েকটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, হাইওয়ের বিতর্কিত উক্ত এটিএসআই উপরে পুলিশের ইউনিফর্ম নিচে বাবা লুঙ্গি ও বুট জুতা পরিধান করে হোয়াইক্যংয়ে যোগদানের পর থেকে রাতদিন চব্বিশ ঘন্টা পুলিশ ফাঁড়ির সামনে কক্সবাজার টেকনাফ মহাসড়কের পাশে বসে থাকেন। সড়কের নিরাপত্তায় নিয়োজিত উক্ত পুলিশ সদস্য আইন শৃঙ্খলাবাহিনীর সক্রিয় একজন সদস্য হলেও মাস্তানের মত হাতে লাঠি নিয়ে রাস্তার পাশে বসে তিনি সড়কের উভয় পাশ থেকে আসা যানবাহনগুলোর ড্রাইভিং লাইসেন্স, ইন্সুরেন্স ও কাগজপত্র তল্লাশীর অজুহাতে যানবাহন প্রতি ৫শ’ থেকে শুরু করে ত্রেবিশেষ ১০/১৫ হাজার টাকা পর্যন্ত নগদে আদায় করে ছাড়েন। বিশেষ করে কক্সবাজার জেলার বাহির থেকে সেন্টমার্টিনগামী পর্যটকবাহী কোন গাড়ি নাগালে পেলেই তিনি চড়াও হয়ে নাম্বার প্লেট ও ইত্যাদি অজুহাত দেখিয়ে গাড়িগুলো আটকিয়ে ধরে ইচ্ছেমত চাঁদাবাজি করে ছাড়েন। যোগদানের পর থেকে গত ২/৩ মাস ধরে দিবালোকের মত স্পষ্ট তার এহেন বাড়াবাড়ির দৃশ্যটি স্থানীয় হাইওয়ে ফাঁড়িতে কর্মরত ইনচার্জ দেখেও নাদেখার ভান করে চলছেন। নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, এটিএসআই মোশরফ কর্তৃক চাঁদাবাজির এই টাকার একটি অংশ দৈনিক ভিত্তিতে হাইওয়ের এসআই (তার ইনচার্জ) পাওয়ায় তিনি তাকে বারণ করছেন না বরং একাজে আরোও উৎসাহিত করছেন।

 
স্থানীয় সূত্র জানায়, হাইওয়ের উক্ত দূর্ণীতিবাজ  এটিএসআই মোশরফের কারণে পুলিশের ভাবমূর্তি দারুণভাবে ুন্ন হচ্ছে। কারণ সরকারি বিধান মতে তার ডিউটি রাস্তায় হলেও রাতের অন্ধকারে তিনি হোয়াইক্যংয়ের বিভিন্ন পাড়া, মহল্লার বাসা বাড়িতেও অভিযান চালাচ্ছে। সূত্র মতে, উক্ত বিতর্কিত এটিএসআই মোশরফ পুলিশের খাকি পোষাক পরে ইয়াবা উদ্ধার ও ওয়ারেন্টের আসামী গ্রেফতারের নামে দিনের পর দিন এমন বেআইনী কর্মকান্ডে লিপ্ত থাকলেও পুলিশের ভয়ে গ্রামাঞ্চলের মানুষ মুখ খোলতে সাহস পাচ্ছেন না। এই অবস্থায় বিষয়টি তদন্তপূর্বক উক্ত দুর্ণীতিবাজ এটিএসআই মোশরফ হোসেনের বিরুদ্ধে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে ভোক্তভোগীরা সংশ্লিষ্ট উচ্চ পর্যায়ের তড়িৎ হস্তপে কামনা করেছেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।