সংসদ উত্তপ্ত

বিরোধীদলীয় নেতা খালেদা জিয়া জামায়াত-শিবিরের হরতালে সমর্থন দিয়ে দেশব্যাপী অস্থিরতা তৈরি করেছেন। পুলিশকে মারলে পুলিশ কী চুমু খাবে? হামলাকারীদের ওপর ব্যবস্থা নিয়ে পুলিশ তাদের দায়িত্ব পালন করেছে। খালেদা জিয়া বাঙালির বিরুদ্ধে আরেকটি যুদ্ধ ঘোষণা করেছেন। জামায়াত-শিবির যতোগুলো পুলিশ মেরেছে, তার দায়ভার খালেদা জিয়াকে নিতে হবে বলে হুমকি দিয়েছেন মহাজোটের এমপিরা। এসময় সংসদ উত্তপ্ত হয়ে পড়ে। রোববার জাতীয় সংসদের বৈঠকে পয়েন্ট অব অর্ডারে দাঁড়িয়ে তারা এসব কথা বলেন।

স্বাধীনতা পুরস্কার পাওয়া স্পিকারকে ধন্যবাদ জানিয়ে শেখ ফজলুল করিম সেলিম বলেন, “যুদ্ধাপরাধীদের বিচার শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আমাদের বিরোধীদলীয় নেতা বেসামাল হয়ে গেছেন। তিনি জামায়াত-শিবিরকে দিয়ে বিভিন্ন জায়গায় পুলিশের ওপর হামলা চালিয়েছেন। ঘুমন্ত মানুষসহ বাস পুড়িয়ে মানুষ হত্যা করেছেন। যতরকম অরাজকতা বিশৃংখলা তৈরি করা যায় তার সবাই তিনি করেছেন।”
‘বিএনপি-জামায়াত যে গৃহযুদ্ধের কথা বলছে, সেটা আমলে নিয়ে আমরা যদি পাল্টা হামলা চালাই তা হলে পরিস্থিতি কেমন হবে’ শীর্ষক প্রশ্ন ছুড়ে দিয়ে তিনি বলেন, “তখন কী অবস্থা হতো। আমরা শান্তিবাদী লোক।”

তিনি বলেন, “সিঙ্গাপুর থেকে ফিরে খালেদা জিয়া আইএসআইএর একটি প্রেসরিলিজ পড়লেন। কোনো সাংবাদিককে কোনো প্রশ্ন করতে দিলেন না। তার ইন্ধনে জামায়াত-শিবির পুলিশ ফাঁড়িতে আক্রমণ চালিয়ে আটজন পুলিশকে হত্যা করলো। নাটোর সাতক্ষীরায় আমাদের দুইজন ছাত্রলীগ ও যুবলীগ নেতাকে জবাই করে হত্যা করলো। পুলিশ তার জানমাল রক্ষায় ব্যবস্থা নিলে তাতে হয়তো কিছু মানুষ আঘাত পেয়েছিল, এটাকে কী গণহত্যা বলে? উনি গণহত্যার ডেফিনেশন জানেন না। পুলিশকে মারলে পুলিশ কী চুমু খাবে? হামলাকারীদের ওপর ব্যবস্থা নিয়ে পুলিশ তাদের দায়িত্ব পালন করেছে। এগুলো পুলিশকে মারা হয়েছে, তার দায়ভার খালেদা জিয়াকে নিতে হবে।”

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।