শহীদ হিসেবে দুই লক্ষাধিক নাম অন্তর্ভুক্ত হয়েছিল: নজরুল ইসলাম

মুক্তিযোদ্ধা তালিকার মতো মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের নাম লিপিবদ্ধ করার দাবি জানিয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান। শনিবার দুপুরে রাজধানীর পুরানা পল্টনে ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন মিলনায়তনে এক সমাবেশে তিনি এ দাবি জানান।

 

বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলার প্রতিবাদে ২০-দলীয় জোটের শরিক জাগপার ঢাকা মহানগর কমিটি এ সমাবেশের আয়োজন করে।

 

নজরুল ইসলাম খান বলেন, ‘আমরা যারা মুক্তিযুদ্ধ করেছি, মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা হয়েছে, হচ্ছে। আমরা সম্মানী ভাতা পাচ্ছি। যারা শহীদ হয়েছেন, তাদের সম্মান জানানো কি আমাদের কর্তব্য নয়?’

 

এই বিএনপি নেতা বলেন, শহীদদের নাম লিপিবদ্ধ করতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সরকারের আমলে বিচারপতি সাত্তারের নেতৃত্বে ১২ সদস্যের একটি কমিটি করা হয়েছিল। ওই কমিটি প্রথমে ২৮ হাজার শহীদের নাম লিপিবদ্ধ করেছিল। কিন্তু এটা কারও কাছে বিশ্বাসযোগ্য নয়। পরবর্তীতে দুই লাখের বেশিসংখ্যক নাম অন্তর্ভুক্ত হয়েছিল। সাংবাদিক ডেভিড ফ্রস্টের সঙ্গে কথা বলার সময় শেখ মুজিবুর রহমান বলেছিলেন, ‘থ্রি মিলিয়ন’। তারপর থেকে এটাই শহীদের সংখ্যা ধরা হয়।

 

নজরুল ইসলাম খান আরো বলেন, খালেদা জিয়া মুক্তিযুদ্ধে শহীদের সংখ্যা বলেননি। তার বক্তব্যে দেশদ্রোহিতার কোনো উপাদান নেই। সরকার খালেদা জিয়াকে রাজনীতি করতে দিতে চায় না, তাই মিথ্যা মামলা হয়েছে। রাজনৈতিক মামলা হতে পারে; কিন্তু একজন রাজনীতিবিদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা অপমানজনক ও অসম্মানজনক।

 

তিনি অভিযোগ করেন, সরকার এই মামলা দিয়ে জনগণকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে। খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে এই মামলা দিয়ে সরকার তাদের কফিনে শেষ পেরেক দিয়েছে।

 

গত মাসে মুক্তিযোদ্ধাদের এক অনুষ্ঠানে বিএনপির চেয়ারপারসন ‘মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের সংখ্যা নিয়ে বিতর্ক আছে’ বলে মন্তব্য করেছিলেন। এ অভিযোগে তার বিরুদ্ধে সম্প্রতি রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা করেছেন আওয়ামীপন্থী এক আইনজীবী।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।